তারিখ : ১৭ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

সবাইকে ঘাতক ব্যধি এইডস সম্পর্কে জানতে হবে

সবাইকে ঘাতক ব্যধি এইডস সম্পর্কে জানতে হবে
[ভালুকা ডট কম : ০৯ ডিসেম্বর]
এইডস রোগ সবার জন্য একটি আতঙ্কের নাম। এটি HIV (Human Immunodificiency Virus) নামক ভাইরাসজনিত সংক্রামক রোগ। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পুর্ণরুপে ধ্বংস হয়। ফলে যে কোনো রোগে আক্রান্ত হয়ে রুগীর মৃত্যু হয়। ১৯৮৪ সালে সর্বপ্রথম ফরাসি বিজ্ঞানী এইডসের জীবাণু আবিষ্কার করেন। সারা বিশ্বে ব্যাপক হারে এ রোগটি ছড়িয়ে পড়ছে। বর্তমানে বাংলাদেশে HIV আক্রান্তের সংখ্যা ১২ হাজার।

এইডস যেভাবে ছড়ায়:
১. অনিরাপদ ও অবাধ যৌনাচার।
২. ইনজেকশনের মাধ্যমে মাদক গ্রহণ।
৩. আক্রান্ত ব্যক্তির অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপন।
৪. রেজার, ব্লেড ও ক্ষুর শেয়ার করলে।
৫. জীবাণুযুক্ত ডাক্তারী যন্ত্রপাতির ব্যবহার।
৬. জীবাণুযুক্ত সিরিঞ্জ ব্যবহার।
৭. আক্রান্ত গর্ভবতী মা থেকে সন্তানে।
৮. আক্রান্ত মা শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ালে।

এইডস যে ভাবে ছড়ায় না:
১. এইডস কোন ছোঁয়াছে রোগ নয়।
২. হাঁচি-কাশি, থুথু বা শ্বাস প্রশ্বাস।
৩. চলা ফেরা, খেলাধুলা ও স্পর্শ করলে।
৪. কোলাকুলি বা করমর্দন করলে।
৫. একই ঘর, বিদ্যালয় ও শ্রেণিকক্ষ।
৬. একই বিছানা ও বালিশ শেয়ার।
৭. থালা বাসন ও কাপড় ব্যবহার।
৮. একই বাথরুম ব্যবহার করলে।
৯. মশা, মাছি বা পোকা মাকড়।
১০. সেবাদানকারী স্বাস্থ্যকর্মীর।

এইডসের লক্ষণসমূহ:
১. শরীরের ওজন দ্রুত হ্রাস।
২. বারবার জ্বর ও রাতে ঘাম।
৩. অতিরিক্ত অবসাদ অনুভব।
৪. ঘাড় ও বগলে ব্যথা হওয়া।
৫. শুকনো কাশি ভাল না হওয়া।
৬. মুখমন্ডল, নাক ও চোখ ফুলা।
৭. দির্ঘদিন পাতলা পায়খানা।
৮. লসিকা গ্রন্থি ফুলে যাওয়া।
৯. মুখের ভিতর ও জিহবায় সাদা ঘা।

পরীক্ষা ও চিকিৎসা :
রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে এইডস নিশ্চিত হওয়া যায়। এইডসের সুনির্দিষ্ট কোন চিকিৎসা নাই। উপসর্গ ও লক্ষণ অনুযায়ী চিকিৎসা দিতে হয়। প্রতিরোধই এইডসের সর্বোত্তম ব্যবস্থা।
এইডস প্রতিরোধ:
১. শিক্ষা ও সচেতনতা জরুরি।
২. অনিরাপদ ও অবাধ যৌনতা নয়।
৩. ইনজেকশনে মাদক সেবন নয়।
৪. ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ ব্যবহার।
৫. স্ক্রিনিং করা রক্ত গ্রহণ।
৬. যৌনরোগের চিকিৎসা করা।
৭. আক্রান্তের মা'র দুধ না খাওয়ানো।
৮. গণমাধ্যমে প্রচার চালানো।
৯. প্রতিরোধক ব্যবস্থার সহজলভ্যতা।
১০. সকল হাসপাতালে HIV স্ক্রিনিং।
১১. মসজিদের ইমাম দ্বারা  মুসুল্লিদের সচেতনতা।

এইডস রুগীর জন্য করণীয় :
১. স্বাভাবিক কাজকর্মে উৎসাহিত করা।
২. আন্তরিকতাপূর্ণ ও সৌহার্দ্যমুলক আচরণ।
৩. হাসিখুশি রাখার চেষ্টা করতে হবে।
৪. তাদের প্রতি ভাল ব্যবহার এবং যত্নবান হওয়া।
৫. দৈনন্দিন কাজকর্মে বঞ্চিত না করা।
৬. প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা করা।
ঘাতক ব্যাধি এইডস থেকে বাঁচতে হলে আমাদের সবাইকে এ রোগের ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। অন্যকেও সচেতন করে তুলতে হবে।





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

স্বাস্থ্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই