তারিখ : ২৪ জুন ২০১৮, রবিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ধনুষ্টঙ্কার বা টিটেনাস হলো এক মরণ ব্যাধি

ধনুষ্টঙ্কার বা টিটেনাস হলো এক মরণ ব্যাধি
[ভালুকা ডট কম : ১৩ এপ্রিল]
ধনুষ্টঙ্কার (tetanus) এক ঘাতক ব্যাধির নাম। চিকিৎসা না করলে এতে আক্রান্ত অধিকাংশ রোগী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। আমাদের দেশে প্রতি বছর গড়ে বিশ থেকে পঁচিশ হাজার লোক ধনুষ্টঙ্কারে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়।

এটি একটি ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রামক ব্যাধি, স্নায়ুতন্ত্রকে আক্রান্ত করে। এর জন্য দায়ী জীবাণুর নাম 'clostridium tetani'। জীবাণুটি মাটি ও ময়লা আবর্জনায় থাকে। যেকোন অপরিচ্ছন্ন ক্ষতস্থান দিয়ে এটি মানব দেহে ঢুকে বিষ তৈরী করে যা স্নায়ুতন্ত্রকে আক্রান্ত করে। ফলে মাংশপেশি শক্ত হয়ে যায়। মুখমন্ডল, ঘাড় ও পিঠের মাংসপেশি শক্ত হয়ে যায়। রোগী মুখ খুলতে পারে না এবং ঘাড় নাড়াতে পারে না। পিঠ বাঁকা হয়ে ধনুকের মতো হয়ে যায়। মারাত্মকভাবে আক্রান্ত রোগীদের খিঁচুনি হয়।

এ রোগের জীবাণু এক থেকে তিন সপ্তাহ পর্যন্ত সুপ্ত অবস্থায় থাকতে পারে। প্রথম দিকে ঘাড়, শরীরের পেছন দিক এবং পেটে ব্যথা হতে পারে। জ্বর ও মাথা ব্যথা থাকতে পারে। মাংসপেশিগুলো সংকুচিত হতে থাকে এবং প্রচন্ড খিঁচুনি হয়। মুখের মাংসপেশিগুলো শক্ত হয়ে যাওয়ার ফলে হাঁ করতে অসুবিধা হয়। শরীরের পেছনের মাংসপেশি সংকুচিত হয় বলে পুরো শরীর ধনুকের মতো বেঁকে যায়। যে কোনো ব্যথা, শব্দ,আলো ইত্যাদির কারণে খিঁচুনি আরম্ভ হয় এবং তিন থেকে চার মিনিট স্থায়ী হয়। শ্বাসকষ্ট হয় এবং রোগী ঢোক গিলতে পারে না। শরীরের কাটা জায়গা, যার মাধ্যমে জীবাণু শরীরে প্রবেশ করে, সেখানে ইনফেকশন হতে পারে।

রোগ নির্ণয় করতে তেমন কোন প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষার দরকার হয়না। উপসর্গ ও লক্ষণ দেখেই ধনুষ্টঙ্কার নিরূপণ করা হয়। আক্রান্ত রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে এমন স্থানে রাখতে হবে, যেখানে আলো ও শব্দ কম থাকে। TIG বা টিটেনাস ইমিউনোগ্লোবিউলিন ইনজেকশন দিতে হবে। বেনজাইল পেনিসিলিন বা মেট্রোনিডাজল ইনজেকশন দিতে হবে। খিঁচুনির জন্য ডায়াজিপাম, লোরাজিপাম অথবা ক্লোরপ্রোমাজিন জাতীয় ইনজেশন দিতে হবে।

প্রতিরোধ:
**আক্রান্ত ক্ষতস্থান হাইড্রোজেন-পারঅক্সাইড দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।
**জীবাণুমুক্ত ব্লেড দিয়ে নব্জাতকের নাড়ী কাটতে হবে।
**শিশুর জন্মের পর পরই সব টিকা নেয়া।
**মা গর্ভবতী হলে টিকা নেয়া।
**১৫ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ৫টি টিটি ইনজেকশন পর্যায়ক্রমে নেয়া।
**যেকোনো অপারেশন ও দুর্ঘটনা হলে ধনুষ্টঙ্কারের টিকা নেয়া।
ধনুষ্টঙ্কার টিকা শতভাগ কার্যকরী। আসুন সময়মত টিকা নিয়ে মরণ ব্যাধি ধনুষ্টঙ্কার মুক্ত থাকি। #






সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

স্বাস্থ্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ২০৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই