তারিখ : ২৪ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

বেনাপোল বন্দরে কোটি টাকার সামগ্রী আটক

বেনাপোল বন্দরে ফিটকিরির নামে কোটি টাকার শাড়ি-ফেব্রিক্স-প্রসাধনী সামগ্রী আমদানি
[ভালুকা ডট কম : ১২ মে]
ঈদ সামনে রেখে চোরাচালানী একটি চক্র বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে ফিটকিরি ঘোষনা দিয়ে ১ কোটি ১৫ লক্ষ টাকার শাড়ি, ফেব্রিক্স ও প্রসাধনী সামগ্রী আমদানি করায় বন্দর অভ্যন্তর থেকে ভারতীয় ট্রাকসহ একটি পণ্যচালান আটক করেছে বেনাপোল কাষ্টম কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার রাতে বন্দরের ৩৪ নম্বর শেড এলাকা থেকে পণ্যবাহী ট্রাকটি বেনাপোল কাস্টম হাউজে নিয়ে আসা হয়। শুক্রবার সারাদিন ট্রাক থেকে পণ্য নামিয়ে পরীক্ষা করে তার মধ্যে ২ হাজার ৭শ’ ৮০ পিস উন্নত মানের শাড়ি, ৪শ’২০ কেজি সেনথেটিক ফেব্রিক্স, ৬শ’৭০ কেজি ফেস ক্রিম পাওয়া যায়। কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সতর্কতার কারণে সুবিধা করতে পারেনি ওই চক্রটি।

এদিকে এই চালানটি আটক করার পর ওই চক্রটি কাস্টমস কর্মকর্তাদেরকে নানাভাবে টেলিফোনে ও সাংবাদিক দিয়ে ভয়ভীতিসহ বানোয়াট সংবাদ প্রকাশের হুমকি ধামকি দিয়ে চলেছে। শুক্রবার পরীক্ষণ কর্মকর্তা, সহকারি কমিশনারসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তার কাছে অপ্রত্যাশিত বিড়ম্বিত ও বিব্রতকর প্রশ্ন সম্বলিতও কল এসেছে। বিষয়টা এমন, সবাই রাজি, কাস্টমস আটক করে বিশাল অপরাধ করেছে বলে জানান কাস্টমসের জনৈক কর্মকর্তা।

কাষ্টমস হাউসের সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, ঢাকাস্থ ফারদিন ট্রেড ইন্টান্যাশনাল নামে বাংলাদেশি এক আমদানিকারক ভারত থেকে তিনশ‘ প্যাকেজ (১৫ মেট্রিক টন) ফিটকিরি আমদানির জন্য গত ৪ এপ্রিল ব্যাংকে এলসি খোলেন। যার এলসি নম্বর-১৮৯১১৮০১০০৫৬। পণ্যচালানটি নিয়ে ভারতীয় একটি ট্রাক (ডাব্লিউ-বি-২৩-এ-৩২৭৩) বৃহস্পতিবার বিকেলে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। যার বিসিপি নং-১৮৫৪৭। কিন্তু পণ্য চালানে ফিটকিরির নামে উন্নত মানের শাড়ি, থ্রিপিচ আমদানি করা হয়েছে। এ ধরনের সংবাদের পর পরই বেনাপোল কাষ্টম হাউসের ইনভেজটিকেশন রিসার্স ম্যানেজমেন্ট (আইআরএম) টিমের একটি দল বন্দরের বাণিজ্যিক পণ্যের শেডগুলোসহ সন্দেহজনক ৩৪ নম্বর শেডের (গুদাম) আশে পাশে সুকৌশলে অভিযান চালানো হয়। বিভিন্ন শেডের সামনে আনলোডের অপেক্ষায় থাকায় ২৩টি ভারতীয় ট্রাক পর্যায়ক্রমে তল্লাশী করা হয়। রাত ৮টার দিকে ৩৪ নং শেডের পিছন থেকে ভারতীয় ট্রাকটি আটক করা হয়। অভিযানের সময় ট্রাক চালক ও এজেন্ট পালিয়ে যায়। পরে ট্রাকের মধ্যে প্রাথমিক তল্লাশি করে ফিটকিরির পরিবর্তে উন্নত মানের শাড়ি সেনথেটিক ফেব্রিক্স  থ্রিপিচের চালান দেখতে পাওয়া যায়। সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার জন্য মিথ্যা ঘোষনা দিয়ে আমদানি করায় পণ্য চালানটি আটক করা হয়েছে। আটককৃত পণ্য চালানটির মুল্য ট্রাকসহ ১ কোটি ৩৯ লাখ ৮২ হাজার ৬৬৩ টাকা। এর মধ্যে মালের মূল্য ১ কোটি ১৪ লাখ ৮২ হাজার ৬৬৩ টাকা।  শুল্ক ফাঁকি দেওয়া হচ্ছিল প্রায় ৬৫ লাখ টাকা বলে তিনি জানান।

বেনাপোল কাস্টম হাউজের কমিশনার মোহাম্মাদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী জানান, এমন হবার কথা ছিল না। ব্যবসায়ী, সিএন্ডএফ এজেন্ট সবাই কথা দিয়েছিল অনিয়ম করা হবে না। সেভাবেই চলছিল। ছোটখাটো দোষক্রটি আমিও উপেক্ষা করে আসছিলাম। বিচার কাজেও নমনীয় হতে চেষ্টা করেছি। তবু এমন একটা ঘটনা আমাদের ব্যথিত করেছে। আমরাও বসে নেই। খবর রাখছি। টাকা খরচ করে সোর্স নিয়োগ করেছি। ঈদ সামনে রেখে একটি চক্র বেপরোয়া হয়ে এমন জঘন্য অপরাধ ও চোরাচালানের আশ্রয় নিয়েছে। কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সতর্কতার কারণে সুবিধা করতে পারছে না। এখনো কেউ ট্রাক বা পণ্য দাবী করতে আসেনি। তদন্ত চলছে। এর সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে মুদ্রাপাচার আইনসহ বিভাগীয় কার্যক্রম চলমান আছে বলে জানান তিনি। #






সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অপরাধ জগত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৯৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই