তারিখ : ১৮ আগস্ট ২০১৮, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

তামাকবিরোধী সংগঠনসমূহের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি

তামাকবিরোধী সংগঠনসমূহের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি
[ভালুকা ডট কম : ১৩ মে]
আসন্ন বাজেটে সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুলসহ সকল তামাকজাত দ্রব্যের উপর উচ্চহারে করারোপের দাবিতে ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিড্স (সিটিএফকে), ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, ডব্লিউবিবি ট্রাস্ট, এসিডি, ইপসা, নাটাব, প্রত্যাশা, টিসিআরসি, তাবিনাজ, বিসিসিপি, এইড ফাউন্ডেশন, প্রজ্ঞাসহ বিভিন্ন তামাকবিরোধী সংগঠন সম্মিলিতভাবে আজ ১৩ মে রবিবার সকাল ১১:৩০ মিনিটে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একটি মানববন্ধন কর্মসূচি আয়োজন করে।

কর্মসূচিতে বিভিন্ন তামাকবিরোধী সংগঠন ব্যানার, ফেস্টুন, মিউজিক্যাল ট্রাক, কঙ্কাল প্রতিমূর্তিসহ অংশগ্রহণ করে। মানববন্ধন শেষে তামাকবিরোধী সংগঠনসমূহের প্রতিনিধি দল মাননীয় অর্থমন্ত্রীর কাছে প্রেরণের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এর চেয়ারম্যান মহোদয়ের নিকট একটি স্মারকলিপি প্রদান করে।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তারা জানান, তামাক জনস্বাস্থ্য, পরিবেশ ও অর্থনীতির জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর একটি পণ্য। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা এবং এসডিজি এর স্বাস্থ্য সংক্রান্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে তামাক নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক চুক্তি ‘এফসিটিসি’র বাস্তবায়নকে অন্যতম কৌশল হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আগামী ২০৪০ সালের পূর্বেই বাংলাদেশ থেকে তামাকের ব্যবহার সম্পূর্ণ নির্মূল করার ঘোষণা দিয়েছেন। তবে সস্তা তামাকপণ্য তরুণ ও স্বল্প আয়ের মানুষকে ক্রমশ তামাক ব্যবহারে বিশেষভাবে আকৃষ্ট করছে। কার্যকর তামাক-কর তামাকপণ্যের সহজলভ্যতা হ্রাস করে, যা সরকার এবং জনগণ উভয়ের জন্যই লাভজনক।=জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা ও টেকসই উন্নয়নের জন্য তামাকের ব্যবহার হ্রাস করতে, মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে আসন্ন ২০১৮-১৯ বাজেটে সকল তামাকপণ্যে কার্যকর করারোপে

দাবিসমূহ তুলে ধরা হয়:
১। বিদ্যমান জটিল করকাঠামো সংস্কার করে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী একটি সহজ ও কার্যকর তামাক করনীতি প্রণয়ন করা;
২। সিগারেটের মূল্যস্তর সংখ্যা চারটি থেকে দুইটিতে (নিন্ম এবং উচ্চ) নামিয়ে আনা: নিন্মস্তরের সিগারেটে করারোপের ক্ষেত্রে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিভাজন তুলে দেওয়া এবং উচ্চ ও প্রিমিয়াম স্তরকে একত্রিত করে একটি মূল্যস্তরে (উচ্চস্তর) নিয়ে আসা; নিন্মস্তরে ১০ শলাকা সিগারেটের সর্বনিন্ম মূল্য ৫০ টাকা নির্ধারণ করে ৬০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা এবং উচ্চস্তরে ১০ শলাকা সিগারেটের সর্বনিন্ম মূল্য ১০০ টাকা নির্ধারণ করে ৬৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা; এবং সকল ক্ষেত্রে প্রতি ১০ শলাকা সিগারেটে ৫ টাকা সুনির্দিষ্ট কর আরোপ করা;
৩। ফিল্টার এবং নন-ফিল্টার বিভাজন বাতিল করে প্রতি ২৫ শলাকা বিড়ির সর্বনিন্ম মূল্য ৩০ টাকা নির্ধারণ: বিড়ির ক্ষেত্রে ফিল্টার এবং নন-ফিল্টার বিভাজন বিলুপ্ত করা; প্রতি ২৫ শলাকা বিড়ির সর্বনিন্ম মূল্য ৩০ টাকা নির্ধারণ করে ৪৫% সম্পূরক শুল্ক এবং ৬ টাকা সুনির্দিষ্ট কর আরোপ করা;
৪। ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্যের (জর্দা ও গুল) এক্স-ফ্যাক্টরি প্রাইস প্রথা বিলুপ্তকরণ: এক্স-ফ্যাক্টরি প্রাইস প্রথা বিলুপ্ত করে সিগারেট ও বিড়ির ন্যায় খুচরা মূল্যের ভিত্তিতে করারোপ করা; প্রতি ২০ গ্রাম ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্যের সর্বনিন্ম মূল্য ৫০ টাকা নির্ধারণ করে ৪৫% সম্পূরক শুল্ক এবং ১০ টাকা সুনির্দিষ্ট কর আরোপ করা;
৫। সকল তামাকপণ্যের খুচরা মূল্যে ১৫ শতাংশ ভ্যাট বহাল রাখা।উপর্যুক্ত প্রস্তাবনাসমূহ বাস্তবায়ন করা হলে তামাকের ব্যবহার উল্লেখযোগ্যহারে কমার পাশাপাশি সরকার অতিরিক্তি ৭,৫০০ থেকে ১০,০০০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করবে।

বার্তা প্রেরক
তামাকবিরোধী সংগঠন সমূহের পক্ষে,
মেহেদি হাসান
প্রজ্ঞা (প্রগতির জন্য জ্ঞান)






সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জাতীয় বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫২৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই