তারিখ : ২৩ জুন ২০১৮, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

রাণীনগরে স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত উপজেলার লাখ লাখ মানুষ

রাণীনগরে স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত উপজেলার লাখ লাখ মানুষ
[ভালুকা ডট কম : ০৭ জুন]
নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে সেবা দিচ্ছে মাত্র ৩জন ডাক্তার। এছাড়াও বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীন নানা সমস্যায় জর্জড়িত সরকারী এই সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানটি। এদিকে হাসপাতালের মধ্যে চিকিৎসকদের বসবাসের আবাসিক ভবন থাকলেও এতে থাকেন না কেউ। তাই সেগুলো আজ নষ্টের পথে।

সূত্রে জানা, হাসপাতালে ৩জন ডাক্তার রয়েছে তারা নিয়মিত অফিসে আসেন না। তাহলে তারা কিভাবে চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। আর এতো বড় উপজেলায় সব সময় রোগীদের ভীড় লেগেই থাকে। এদিকে ডাক্তারের পাশাপাশি নার্সও সংকট রয়েছে বলে জানান অনেকেই। ৩জন চিকিৎসক আর গুটি কয়েক সেবিকা দিয়ে চলছে উপজেলার প্রায় ৪লাখ মানুষের স্বাস্থ্য সেবা প্রদান।

রোগীদের অভিযোগ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে দুই-একটি ওষুধ থাকলেও বাকিগুলো বাহির থেকে কিনে নেয়ার জন্য বলা হয়।  এটি নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বর্তমান চিত্র। সরকারী নীতিমালা অনুসারে ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ ১৮জন চিকিৎসক ও ২৮জন সেবিকা থাকার নির্দেশনা থাকলেও বর্তমানে এই স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে মাত্র ৩জন চিকিৎসক ও ৮জন সেবিকা রয়েছে। যারা প্রতিদিন স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে আসা শত শত রোগীদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। শুধু চিকিৎসক আর ওষুধ সংকটই নয় এখানকার আলট্রাসোনোগ্রাফ মেশিন দীর্ঘদিন যাবত নষ্ট হওয়ার কারণে এখানকার রোগীদের বেশি খরচে বাহিরে আলট্রসোনোগ্রাফ করতে হয়।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা গর্ভবতি রহিমা বেগম বলেন, তাকে চিকিৎসক একটি নির্দিষ্ট দিনে আসার কথা বললেও তিনি এসে ডাক্তার না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। তাকে আবার নতুন করে তারিখ দেয়া হয়েছে। আর সরকারের পক্ষ থেকে যে সকল ওষুধ বিনামূল্যে রোগীদের দেয়ার কথা রয়েছে সেগুলো বাহির থেকে কিনে নিতে হয় তাদের। আধুনিক স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলায় বসবাসরত প্রায় ৪লাখ মানুষ।

সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এ্যাড. ইসমাইল হোসেন বলেন এই স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সটি ডাক্তার ও নার্সসহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জড়িত। বিশেষ করে এক্সরে মেশিনসহ নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষার মেশিনগুলো অনেক দিন থেকে নষ্ট। তাই অতিসত্তর সরকার যদি এসব সমস্যার সমাধান করে তাহলে উপজেলাবাসী অনেক উপকৃত হবে বলে জানালেন।

রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ এসএম নজমুল আহসান বলেন, বর্তমানে মাত্র ৩জন চিকিৎসক থাকার কারণে স্বাস্থ্যসেবা দিতে সব সময় সমস্যায় পড়তে হচ্ছে । আর এই কয়েকজন ডাক্তার দিয়ে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া তাদের পক্ষে কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই সাথে আবার ওষুধ সংকট। আমি এই হাসপাতালের যাবতীয় সমস্যা লিখিত ভাবে উপরমহলকে জানিয়েছি তবুও কোন লাভ হচ্ছে না। #






সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ২০৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই