তারিখ : ২০ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচন

আ’লীগ ও বিদ্রোহী প্রার্থী সরব থাকলেও বিএনপি’র প্রার্থী নেই মাঠে
তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচন
[ভালুকা ডট কম : ১৮ জুলাই]
ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন আইনি জটিলতার কারণে বন্ধ থাকার পর আগামি ২৫ জুলাই নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশন কর্তৃক উপ-নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পরপরেই আ.লীগ প্রার্থী ও বিদ্রোহী  প্রার্থী নির্বাচনের মাঠ চষে বেড়ালেও  বিএনপির দলীয় প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে একেবারেই নেই।

নির্বাচনী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আ.লীগ দলীয় মনোনীত প্রার্থী  আলহাজ্ব ফজলুল হক দেওয়ান  নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনতে কাকা ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নেতা কর্মীদের নিয়ে গ্রাম-গঞ্জে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটে বেড়াচ্ছেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে ওঠান বৈঠক ও বিভিন্ন হাট বাজারে দলীয় কার্যালয়ে কর্মী সভার মধ্যে দিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। নির্বাচনীয় প্রচারণায় উপজেলা আ’লীগ, যুবলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, ওলামালীগ ও মহিলালীগসহ উপজেলার সর্বস্তরের নেতা-কর্মিরা নৌকার পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিয়ে ভোটারদের মন জয় করার জন্য বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

এদিকে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী চাঁদপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা মিন্টুকে এখন পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে দেখা যায়নি। অথচ আগামী ২৫ জুলাই উপ-নির্বাচনে যেখানে ধানের শীষ ও নৌকার মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দীতা হওয়ার কথা সেখানে তজুমদ্দিন উপজেলার কোন নেতাকে ধানের শীষের পক্ষে ভোটারদের কাছে প্রচার-প্রচারণা চলাতে দেখা যায়নি। বিএনপি’র তৃনমূলের অভিযোগ সারা বছরই বিএনপি’র পদ-পদবী দারী নেতারা এলাকায় থাকেন না। এখন উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনেও তারা ধানের শীষের পক্ষে ভোট না করে রয়েছেন এলাকার বাহিরে। বিএনপি’র নেতাদের এমন সমন্বয়হীনতার কারণে তৃনমূলের অনেক নেতা-কর্মিকে আ’লীগ প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সাথে তাদের ভোট করতে দেখা যায়। জানতে চাইলে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী গোলাম মোস্তফা মিন্টু  নির্বাচনের মাঠে না থাকার কথা স্বীকার করে জানান, আদালতের নির্দেশে  নির্বাচন বন্ধ হওয়ায় নির্বাচনী আমেজ কিছুটা ভাঁটা পড়েছে। দ্বিতীয় দফা তারিখ ঘোষণার পর আমি এখনো প্রচার প্রচারণা ও সভা সমাবেশ শুরু করিনি। আগামী দুই একদিনের মধ্যে দলীয় নেতা কর্মীদের নিয়ে নির্বাচনীয় প্রচারণা শুরু করবো।

অন্যদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী আ’লীগ) নাসির উদ্দিন দুলাল অনেকটা দলীয় নেতা কর্মি ছাড়াই সাধারণ ভোটারদের নিয়ে নির্বাচনের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তিনি শুরু থেকে নিজের মতো করে নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সভা-সমাবেশ ও উঠান বৈঠকের মাধ্যমে ব্যস্ত সময় কাটান তিনি। সাধারণ ভোটারদের দিচ্ছেন তিনি উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি। আইনি জটিলতায় নির্বাচন বন্ধ হলে নাসির উদ্দিন দুলাল আইনি লড়াই চালিয়ে পূণরায় নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করান ।

শেষ সময় পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে লড়াই করে যাবার কথা জানিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী আ’লীগ)  নাসির উদ্দিন দুলাল জানান, জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিতে মাঠে নেমেছি। প্রচার প্রচারনা অব্যাহত আছে। তার তরফ থেকেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য তদবির করার কথা জানান তিনি।

উল্লেখ্য তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব অহিদউল্যাহ জসিমের মৃত্যুতে চেয়ারম্যান পদটি শূণ্য হলে চলতি বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারী শুধুমাত্র চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। ২৯ মার্চ ২০১৮ তারিখে এই  উপ-নির্বাচনের অনুষ্ঠানের তারিখ থাকলেও নির্বাচনের ১১দিন পূর্বে ১৮ মার্চ উপজেলা আ.লীগের সভাপতি, চাঁদপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও বিদ্রোহী প্রার্থী নাসির উদ্দিন দুলালের বড় ভাই ফখরুল আলম জাহাঙ্গির নির্বাচন স্থগিত চেয়ে সুপ্রিম কোটের হাই কোর্ট ডিভিশনে একটি রিট দাখিল করেন। ২০ মার্চ চার সপ্তাহের জন্য নির্বাচন স্থগিতের আদেশ দেন আদালত। এরপর দীর্ঘদিন নির্বাচনীয় সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকার পর গত ৫ জুলাই একচিঠিতে পুনরায় উপ-নির্বাচনের তারিখ ২৫ জুলাই ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

নির্বাচন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই