তারিখ : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকায় স্কুলে স্কুলে শিক্ষকতা করছেন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর

সড়ক দুর্ঘটনা থেকে সচেতন হওয়ার লক্ষে
ভালুকায় স্কুলে স্কুলে শিক্ষকতা করছেন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কাজী আসাদুজ্জামান
[ভালুকা ডট কম : ১৪ আগস্ট]
সড়ক দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে ট্রাফিক আইন মেনে পথচলা সংক্রান্ত সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে স্কুলে স্কুলে ঘুরে ক্লাশে ছাত্র / ছাত্রীদের শিক্ষা দান করে চলেছেন একজন মাঝ বয়সী ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কাজী আসাদুজ্জামান।

সোমবার ভালুকা উপজেলার আশকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় স্কুলের শ্রেণীকক্ষে পুলিশের পোষাক পরা একজন শিক্ষক ছাত্র/ ছাত্রীদের পাঠ দান করছেন। তিনি পড়াচ্ছিলেন, কি ভাবে রাস্তা পারাপার হবে, গাড়ীতে কেমনে উঠা নামা করবে, মোড়ের রাস্তায় কি করতে হবে, জেব্রা ক্রসিং, ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার, তারাহুড়ো করে রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা না করা, ট্রাফিক সিগন্যাল কোনটার কি নির্দেশ ইত্যাদি। ছাত্র ছাত্রীরা মনোযোগের সহিত তাঁর বক্তব্য শুনছিলেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান জানান নিরাপদ সড়কের লক্ষে ট্রাফিক আইন সমন্ধে ধারনা পাওয়া শুধু ছাত্র ছাত্রী নয় শিক্ষকদের এমনকি  সাধারণ জনগনের মাঝেও এটি শিক্ষা দেয়া প্রয়োজন। ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কাজী আসাদুজ্জামান স্বউদ্যোগে স্কুলে এসে ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষাদান করায় তারা উপকৃত হয়েছেন।

এ ব্যাপারে ভালুকায় কর্মরত ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কাজী আসাদুজ্জামান জানান তিনি রাস্তায় দাড়িয়ে শুধু গাড়ী চলা চল নিয়ন্ত্রনের দায়িত্ব পালনই একমাত্র সীমাবদ্ধ কাজ নয় বলে মনে করেন। পাশাপাশি ট্রাফিক আইন সমন্ধে জনসচেতনতা বৃদ্ধি হলে নিরাপদ সড়ক ও দুর্ঘটনা রোধ সম্ভব। অধিক কার্যকরীর লক্ষে তিনি বেছে নিয়েছেন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের যারা লেখাপড়ার মত সহজেই নিয়ম কানুন রপ্ত করে পরিবারের সকলকে শিখাতে পারবেন।

তিনি জানান সম্পুর্ণ নিজের উদ্যোগে পেশাগত দায়িত্ব পালনের ফাকে ফাকে ভালুকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, হবিরবাড়ী ইউনিয়ন সোনারবাংলা উচ্চ বিদ্যালয়, ভালুকা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সমলা তাহের উচ্চ বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন কিন্ডার গার্টেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়, উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ সহ ভালুকা ও ত্রিশাল উপজেলার ৫১ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ পর্যন্ত প্রায় ২০ হাজার ছাত্র ছাত্রীদের ট্রাফিক আইন বিষয়ক শিক্ষা দান করেছেন। এছাড়াও তিনি ছুটিতে পঞ্চগড় জেলার তেতুলিয়া উপজেলায় নিজ বাড়ীতে গেলে সেখানকার বিদ্যালয়ে ছাত্র/ ছাত্রীদের মাঝে ট্রাফিক নিয়ম সংক্রান্ত শিক্ষা দিয়ে থাকেন।

তিনি জানান দীর্ঘ সময়ের চাকুরী জীবনের অভিজ্ঞতায় সড়ক দুর্ঘটনার অনেক মর্মস্পর্শী মুহূর্ত প্রত্যক্ষ করা থেকে তিনি এ জাতীয় কর্মে অনুপ্রানিত হয়েছেন। এ বয়সে মটর সাইকেল চালিয়ে দুর দুরান্তের বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি নিরাপদ জীবনের জন্য নিরাপদ সড়কে চলাচলের নিয়ম কানুন শিক্ষা দিতে পারায় তিনি কায়িক শ্রমের কষ্ট ভূলে যান।

বর্তমান প্রতিযোগিতার পথচলায় ব্যস্ততম সড়ক মহা সড়কে অসচেতনতা ও অনবিজ্ঞতার কারনে পথচারী সহ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিনিয়ত ঘটছে অসংখ্য প্রানহানি। তিনি মনে করেন যেহেতু একটি দেশের সুশিক্ষিত সচেতন জাতি গঠন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হয়ে থাকে এ থেকে পরিত্রানের লক্ষে ট্রাফিক আইন জানা প্রত্যেক নাগরিকের প্রয়োজন। আর এটি একমাত্র সম্ভব ট্রাফিক আইন সংক্রান্ত তথ্যাবলি স্কুল কলেজের পাঠ্য পুস্তকে অন্তর্ভূকরে নিয়মিত পরাশুনার মাধ্যমে প্রত্যেককে সচেতন করে গড়ে তোলা।

ভালুকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশেক উল্যাহ চৌধুরী সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ কাজী আসাদুজ্জামানের স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষামুলক কর্মকান্ডকে সন্মান জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩২ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই