তারিখ : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নওগাঁয় সিন্ডিকেটের কারণে চামড়া ব্যবসায়ীরা পথে বসার উপক্রম

নওগাঁয় ট্যানারী মালিকদের সিন্ডিকেটের কারণে চামড়া ব্যবসায়ীরা পথে বসার উপক্রম,চামড়া ভারতে পাচার হওয়ার সম্ভাবনা
[ভালুকা ডট কম : ২৪ আগস্ট]
নওগাঁয় গত কয়েক বছরের তুলনায় এবছর কোরবানির পশুর চামড়ার দাম একেবারে কম। কম দামে বেচা-কেনা হচ্ছে এই সব মূল্যবান চামড়াগুলো। আন্তর্জাতিক বাজারে ও ভারতে চামড়ার দাম বেশি থাকলেও ট্যানারী মালিকদের সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া ও বকেয়া টাকা পরিশোধ না করার কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানায়। অথচ ট্যানারী মালিকরা সরকারের কাছ থেকে চামড়া শিল্পের সকল সুযোগ-সুবিধা ভোগ করলেও পথে বসতে শুরু করেছে সাধারণ চামড়া ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা।

সূত্রে জানা, নওগাঁ জেলা ৪টি উপজেলায় ভারতীয় সীমান্তবর্তী হওয়ায় এবার চামড়া ভারতে পাচার হবার সম্ভাবনা আছে বলে কিছু ব্যবসায়ী আশংকা প্রকাশ করছেন। বাংলাদেশ থেকে কোন বিদেশীরা চামড়া কিনছেন না। কিন্তু তারা একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ভারতে বসে ব্লু চামড়াটি অবৈধ ভাবে এই দেশ থেকে সংগ্রহ করছেন। এতে করে চামড়া শিল্পে এই প্রভাবটা খুব বেশি পড়ছে বলে সাধারন চামড়া ব্যবসায়ীরা পড়েছেন বিপদে। এ বারের ঈদে নওগাঁয় ৫ থেকে ৬ কোটি টাকার চামড়া বেচা কেনার সম্ভাবনা থাকলেও ট্যানারী মালিকদের কাছ থেকে পাওনা টাকা না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা। আল্লাহর উপর ভরসা করে এবার নিজেদের টাকায় কম দামে চামড়া কিনছেন ব্যবসায়ীরা। প্রতি বছর ঈদুল আযাহার দিনে নওগাঁয় কোরবানীর পশুর চামড়ার বিশাল বাজার বসে। শহরের বিভিন্ন এলাকা ও গ্রামাঞ্চল থেকে চামড়া কিনে এনে বিক্রির জন্য ভীড় করে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা। বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবারে চামড়ার দাম কম হওয়াই মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীদের এবার পথে বসার উপক্রম হয়েছে। অপরদিকে আমাদের দেশের একশ্রেণির শক্তিশালী সিন্ডিকেট ব্লু চামড়া অধিক লাভে ভারতে অবৈধ ভাবে পাচার করার কারণে চামড়া বাজারে ধস নেমেছে বলে জানান অনেক চামড়া ব্যবসায়ীরা। তবে সরকার যদি এই ব্লু চামড়াটি বৈধ ভাবে রপ্তানি করার ব্যবস্থা গ্রহণ করেন তাহলে আবার আগের মতো চামড়া ব্যবসা চাঙ্গা হয়ে উঠবে বলে আশা করছেন নওগাঁর চামড়া ব্যবসায়ী মহল ।

চামড়া ব্যবসায়ী মো: রফিকুল ইসলাম বলেন, লবণসহ সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে। দীর্ঘদিনের ব্যবসা বলে আমরা ঝুঁকি নিয়ে চামড়া কিনছি। কোম্পানিরা যদি ভালো দাম দেয় তাহলে আমরা ভালো দাম পাবো তা না হলে লোকসান গুনতে হবে। তবে আমরা সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছি ট্যানারী মালিকদের জন্য। তারা কিন্তু সরকারের কাছ থেকে ঠিকই সুবিধা ভোগ করছেন কিন্তু জলে ভেসে যাচ্ছি আমরা ছোট-খাটো চামড়া ব্যবসায়ীরা।

আরেক চামড়া ব্যবসায়ী আব্দুল হামিদ বলেন, ট্যানারী মালিকদের সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া ও আমাদের পাওনা টাকা পরিশোধ না করার কারণে আমরা আমাদের ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে বেশি দামে চামড়া কিনতে হচ্ছে। গত বছর আমি প্রায় ৭০ লাখ টাকার চামড়া কিনে ট্যানারী মালিকদের কাছে সরবরাহ করি কিন্তু অনেক চেষ্টা করে তার অর্ধেক টাকা পেয়েছি এখনও আমার অর্ধেক টাকা ট্যানারী মালিকদের কাছে পড়ে আছে। তারা অনেক বড় ব্যবসায়ী বলে তাদের বিরুদ্ধে শক্তিশালী কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা যায় না তবে সরকার যদি আমাদের হয়ে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করে তাহলে আমরা বাঁচবো তার সঙ্গে বাঁচবে এই ঐতিহ্যবাহী চামড়া শিল্পটি।

নওগাঁ জেলা চামড়া ব্যবসায়ী গ্রুপের সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন বলেন পার্শ্ববতী দেশ ভারতে চামড়ার দাম অনেক বেশী। কারণ ওই দেশে বিদেশ থেকে বিভিন্ন কোম্পানিরা সরাসরি চামড়া কিনতে পারছেন যা আমাদের দেশে বর্তমানে বন্ধ। চামড়া কিনলেও জ্বালা না কিনলেও জ্বালা। ট্যানারী মালিকরা যদি আমাদেরকে খুব সামান্য লাভ দিয়ে নগদ চামড়া কিনে নেন তাহলেই আমরা খুশি। তবে সরকার যদি ব্লু চামড়াটি বৈধ ভাবে রপ্তানি করার ব্যবস্থা করেন তাহলে এই চামড়া শিল্পটি আবারও চাঙ্গা হবে বলে আশা করেন এই চামড়া ব্যবসায়ী।  চলতি কোরবানীর ঈদে নওগাঁয় ৫০হাজার গরু, ৪০হাজার খাসি ও ১৫হাজার ভেড়ার চামড়া কেনা-বেচা হয়েছে। যা আনুমানিক মূল্য ৫ থেকে ৬কোটি টাকা।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩২ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই