তারিখ : ১৪ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

গৌরীপুরে শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার

গৌরীপুরে শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার,পরিচালনা করা হবে ভ্রাম্যমান আদালত
[ভালুকা ডট কম : ১৪ অক্টোবর]
সারাদেশের ন্যায় ময়মনসিংহের গৌরীপুরে সোমবার (১৫ অক্টোবর) থেকে শুরু হতে যাচ্ছে হিন্দুধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ শারদীয় দুর্গোৎসব। এ বছর গৌরীপুর উপজেলায় ৪৯টি স্থায়ী-অস্থায়ী পূজা মন্ডপে দূর্গাপূজার প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রশাসনসূত্রে জানা গেছে দুর্গোৎসবকে ঘিরে পুলিশ বিভাগের উদ্যোগে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এছাড়া আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পূজা চলাকালীন সময়ে পরিচালনা করা হবে ভ্রাম্যমান আদালত।

উল্লেখ্য গৌরীপুর উপজেলাটি একটি জমিদারী অধ্যুষিত এলাকা। জমিদারী আমল থেকেই এখানে দূর্গাপূজা উদযাপিত হয়ে আসছে। তারই নিদর্শন গৌরীপুর রাজবাড়ীর দূর্গাবাড়ী পূজা মন্ডপ ও রামগোপালপুর জমিদার বাড়ী পূজা মন্ডপ। এ দুটি প্রাচীন মন্ডপে দীর্ঘকাল থেকে দূর্গাপূজা উপদযাপিত হয়ে আসছে। প্রতিবছর উৎসব মুখর পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব পালিত হয়ে থাকে গৌরীপুরে। হিন্দুধর্মালম্বীদের এ উৎসব শান্তিপূর্নভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সার্বিক সহযোগিতা করে থাকেন স্থানীয় মুসলমানসহ অন্যান্য সম্প্রদায়ের লোকজন। তেমনি মুসলমানদের পবিত্র ঈদসহ অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আনন্দে শরীক হয়ে থাকেন স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। অতীতে পূজা ও রোজা একই সময়ে উদযাপিত হলেও এখানে কোন সমস্যার সৃষ্টি হয়নি।

গৌরীপুরে ইতোমধ্যে পূজা মন্ডপগুলোতে প্রতিমা তৈরীর সম্পূর্ন কাজ শেষ করেছেন প্রতিমা শিল্পীরা। সম্পন্ন হয়েছে আলোকসজ্জা, তোরণ নির্মাণ, বর্ণিল সাজ ও ডেকোরেশনের কাজ। প্রতিবছরের মত এবারের পূজায় বিভিন্ন মন্ডপে বাড়তি আয়োজনের মধ্যে থাকছে  শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আরতি প্রতিযোগিতা, অতিথি অপ্যায়নসহ নানা আচার-অনুষ্ঠান। পূজা মন্ডপে ঢাকি-বাজনার বায়নাও ইতোমধ্যে পরিশোধ করা হয়েছে।

গৌরীপুর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শ্রী শ্যামল চন্দ্র কর জানান, অশুভ শক্তিকে দমন ও দেশের কল্যাণে ‘মা’ দূর্গা মর্ত্যে আসছেন ঘোড়ায় চড়ে আর ফিরে যাবেন দোলায় চড়ে। তিনি বলেন এবছর ৪৯টি স্থায়ী-অস্থায়ী মন্ডপে দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তারমধ্যে পৌরসভায় ১৪টি ও বিভিন্ন ইউনিয়নে ৩৫টি। এবারই প্রথম পূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পৌরসভার পুরাতন রাইচ মিল এলাকায়। টানাবৃষ্টিকে উপক্ষো করেই চলছে পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি। এক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের পক্ষ থেকে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সার্বিক সহযোগিতা পাচ্ছেন বলে জানান তিনি। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক পূজা মন্ডপ কমিটিকে ইতোমধ্যে ৫শ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম জানান, শান্তিপূর্নভাবে দুর্গোৎসব উদযাপনের লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকল পূজা মন্ডপ কমিটির লোকজনের সাথে মতবিনিময় করা হয়েছে। পূজা চলাকালীন সময়ে শহরে শৃংখলা রক্ষার্থে বিএনসিসি’র সদস্যদেরকে নিয়োজিত করা হচ্ছে। এছাড়াও বখাটের উপদ্র্রব ও আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পরিচালনা করা হবে ভ্রাম্যমান আদালত। তিনি বলেন উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গৌরীপুরে ৪৯টি পূজা মন্ডপে ২৪ হাজার ৫শ কেজি চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গৌরীপুরে এবারই প্রথম কমিউনিটি পুলিশিং এর সদস্যরা প্রতিটি পূজা মন্ডপে পুলিশ, আনসার ও গ্রাম পুলিশদের সাথে কাজ করবেন। সাদা পোশাকধারী পুলিশ মাঠে তৎপর রয়েছেন। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পূজা উদযাপন ও নাশকতা প্রতিরোধে পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে।

উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা রাকিবুল হাসান জানান, গৌরীপুরে ৪৯টি পূজামন্ডপে দায়িত্ব পালনের জন্য ২২৮ জন আনসার-ভিডিপি’র নারী ও পুরুষ সদস্য নিযোজিত করা হয়েছে। তারমধ্যে অধিক গুরুত্বপূর্ন মন্ডপে ৬ জন ও অন্যান্য মন্ডপগুলোতে ৪ জন করে আনসার-ভিডিপি’র সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। #





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ধর্ম বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই