তারিখ : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

আত্রাইয়ে ভরা মৌসুমেও মাছের সংকট,নেই ব্যস্ততা শুটকি পল্লীতে

আত্রাইয়ে ভরা মৌসুমেও মাছের সংকট,নেই ব্যস্ততা শুটকি পল্লীতে
[ভালুকা ডট কম : ১৭ অক্টোবর]
উত্তর জনপদের মৎস্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ে ভরা মৌসুমেও দেশীয় প্রজাতি মাছের তীব্র সংকটের মুখে শুঁটকি ব্যবসায়ীরা। উপজেলায় প্রবেশ করতইে নাকে আসতো শুটকি মাছের ঘ্রান। রেললাইনের দুপাশ দিয়ে চোখে পড়তো শুটকির মাছ শুকানোর চাতাল। কিন্তু চলতি মৌসুমে মাছের অভাবের কারণে নিথর পড়ে আছে এই শুটকি পল্লীর চাতালগুলো। তাই এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের মাঝে হতাশার ছাপ দেখা দিয়েছে।

যে সময় শুঁটকি উৎপাদনে পরিবার পরিজন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করার কথা সে ভরা মৌসুমের শুঁটকি তৈরির চাতালগুলো গুটিয়ে রাখতে দেখা যাচ্ছে। ফলে শুঁটকি ব্যবসায়ীরা পারবিার পরজিন নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছেন এমনকি শুঁটকি উৎপাদনকারীদের মাছে চরম হতাশা বিরাজ করছে। বিগত মৌসুমে শুঁটকি উৎপাদনে ব্যাপক সরব থাকলেও এবারে নেই তাদের মাঝে আগ্রহ। তাই অনেক চাটাইগুলো দিনের পর দিন পড়ে থাকছে মাছ বিহীন। উপজেলার বেশির ভাগ শুটকি চাতাল মাছের অভাবে বন্ধ প্রায়।

জানা যায়, উত্তর জনপদের মৎস্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত স্থান সমূহের মধ্যে আত্রাইও একটি খ্যাত স্থান। প্রতিদিন শত শত টন মাছ আত্রাই থেকে রেল, সড়ক ও নৌ পথে দেশের বিভিন্ন জেলায় বাজারজাত করা হয়। সে অনুযায়ী শুঁটকি উৎপাদনেও আত্রাইয়ের যথেষ্ট প্রসিদ্ধ রয়েছে। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে বিশেষ করে আষাঢ়, শ্রাবন, ভাদ্র, আশ্বিন ও কার্তিক মাস শুঁটকি তৈরির মূল সময়। এ সময়গুলোতে নদী ও খালবিলে প্রচুর পরিমান দেশী মাছ ধরা পড়ে। আর ওই মাছগুলোর শুঁটকি তৈরি করে রাজধানী ঢাকাসহ উত্তরাঞ্চলের রংপুর, নিলফামারী, সৈয়দপুর, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুরসহ দেশের প্রায় ১৫/২০ জেলাতে বাজারজাত করেন আত্রাইয়ের শুঁটকি ব্যবসায়ীরা।

আর এ মাছের শুঁটকি তৈরী করে জীবিকা নির্বাহ করে প্রায় শতাধিক পরিবার। আত্রাইয়ের ভরতেঁতুলিয়া গ্রাম শুঁটকি তৈরীতে বিশেষভাবে খ্যাত। এ গ্রামের শতাধিক শুঁটকি ব্যবসায়ী এ পেশার সাথে সম্পৃক্ত। শুধু বর্ষা মৌসুমে শুটকি তৈরী করে তারা পরিবারের সারা বছরের ভোরণপোষণ নিশ্চিত করতেন। কিন্তু এবার মাছের অভাবে শুঁটকি তৈরি করতে না পারায় ব্যবসায়ীরা হাতাশ হয়ে পড়েছেন। কাঁচা মাছের আমদানী কম, বাজাররে মূল্য বেশি অথচ শুঁটকির বাজারে ধস। সবকিছু মিলিয়ে তাদের এবারে চালান প্রতি লাভের স্থলে গুনতে হচ্ছে লোকসান।

উপজেলার ভরতেঁতুলিয়া গ্রামের বিশিষ্ট শুঁটকি ব্যবসায়ী মঞ্জুর মোল্লা বলেন, অন্যান্য বছর শুটকি বিক্রি করে আমরা যে পরিমান লাভ করতাম এবার ভরা মৌসুমে মাছ না পেয়ে হাত-পা গুটিয়ে বসে আছি। কাঁচা মাছের আমদানি কম, মূল্য বৃদ্ধি হওয়ায় আমরা এবার শুঁটকি তৈরিতে সাহস পাচ্ছি না। এ পরিস্থিতে শুঁটকি তৈরি করলে প্রতি চালানেই আমাদের অনেক লোকসান হবে। এ জন্য অন্যান্যবার শুঁটকি মৌসুমে  শুঁটকি তৈরীর যে ধুম পড়তো এবার তা নেই। অনেকটা আমরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছি। এ জন্য শুঁটকির চাটাইগুলোও ভরা মৌসুমে খালি পড়ে থাকছে।

শুঁটকি ব্যবসায়ী রাম, মাজেদুল, পঁচু, গেদা ও ছাত্তার বলেন, কয়কে বছররে মধ্যে গত বছর সব থেকে ভাল ব্যবসা হয়ছে। এবারে বন্যা না থাকায় নদী ও খালবিলে মাছরে যথষ্টে অভাব। তাই এ র্পযন্ত আমরা শুঁটকি করার কাজে হাত দিতে পারিনি। প্রতি বছর শুঁটকির আয় দিয়ে আমরা সংসার পরিচালনা করতাম। এবারে ব্যবসা না থাকায় আমরা চরম উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছি।

এ ব্যাপারে উপজলো সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আনারুজ্জামান বলেন, যে সময় এ এলাকায় বেশি মাছের উৎপাদন হয় এবার সে সময় এলাকায় পানি সংকট ছিল। এ জন্য মাছের প্রজনন বাড়েনি। ফলে পর্যাপ্ত পরিমান মাছ বাজারে উঠছে না। তবে যতটুকু মাছ বাজারে উঠছে গত বারের তুলনায় অধিক মূল্য হওয়ায় শুঁটকি ব্যবসায়ীরা এ মাছ কিনতে পারছেন না।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

লাইফস্টাইল বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই