তারিখ : ১৪ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকায় বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগে দূর্নীতির অভিযোগ

ভালুকায় বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগে দূর্নীতির অভিযোগ
[ভালুকা ডট কম : ০৮ নভেম্বর]
ভালুকা উপজেলার ১৪ নং বান্দিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী ১টি পদে নিয়োগের জন্য ৪ আবেদন করারীর কাছ থেকে ১৩ লাখ ১০ হাজার টাকা ঘোষ গ্রহনের অভিযোগ এনেছেন বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন খানের বিরোদ্ধে। বৃহস্পতিবার দুপুরে এই অভিযোগের একটি কপি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে দাখিল করা হয়।

অভিযোগে প্রকাশ বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্বান্তনুযায়ী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নিয়োগ সংক্রান্ত বিধিমালা অনুযায়ী গত ১৬, জুলাই ১৮ তারিখে অত্র বিদ্যালয়ের জন্য দপ্তরী কাম প্রহরী ১টি পদে একজন পুরুষ প্রার্থী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রত্রিকায় প্রকাশিত হয়। আগ্রহী প্রার্থীরা ঐ পদে চাকুরীর জন্য বিদ্যালয়ে আবেদন করেন। বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ জামাল উদ্দিন খান আবেদনকারী প্রার্থীদের কাছ থেকে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে চাকুরী দেয়ার নামে শফিকুল ইসলাম খানের পুত্র, হাবিবুল্লাহ খান এর কাছ থেকে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা, আব্দুল কাদির খানের পুত্র মেহেদী হাসান এর কাছ থেকে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা, সিরাজুল হক খানের পুত্র তাজু উদ্দিন এর কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা ও আব্দুর রশিদ খানের পুত্র সোহেল মিয়ার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকাসহ মোট ১৩ লাখ ১০ হাজার টাকা ঘোষ গ্রহন করে এলাকা হইতে গা ঢাকাদেয়। বর্তমানে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এলাকায় না থাকার কারনে প্রার্থীরা প্রতিনিয়ত বিদ্যালয়ে আসিয়া প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের কে বিরক্ত করছে।

সভাপতির অনৈতিক কর্ম-কান্ডের কারনে বিদ্যালয়ের লেখা-পড়ার ব্যাঘাতসহ বিদ্যালয়ের মান সম্মান ও ম্যানেজিং কমিটির অন্যান্ন সদস্য/সদস্যাদের সম্মন হানী করছে। ঘোষের টাকা আন্তসাতের জন্য প্রকাশিত বিজ্ঞতির নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে মারাত্নক ক্ষতি করছে। এই ঘোষের টাকা আত্নসাত করে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকায় এবং কোন প্রকার কার্যক্রমে অংশ গ্রহন না করায় কমিটির কার্যক্রম পরিচালনা ব্যাহত হচ্ছে। সকল ঘটনা সরেজমিনে ক্রুটি মুক্ত তদন্ত পূর্বক ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির বিরোদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আবেদন করেছেন ম্যানেজিং কমিটির সহ-সভাপতি মাফিজা আক্তার ও বিদুৎসাহী সদস্যা সায়েদা খাতুন ।

অভিযোগ সম্পর্কে অভিযোক্ত ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন খান বলেন যারা টাকা প্রদান করেছেন তাদের কোন অভিযোগ নেই। যারা অভিযোগ করেছেন তারা কোন টাকা প্রদান করেননি। তিনি তার বিরোদ্ধে আনিত অভিযোগটি সম্পূর্ন মিথ্যা ও বৃত্তিহীন বলে দাবি করেন। #





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৩৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই