তারিখ : ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মৃতার প্রতিস্থাপিত গর্ভাশয়ে শিশুর জন্ম

মৃতার প্রতিস্থাপিত গর্ভাশয়ে শিশুর জন্ম
[ভালুকা ডট কম : ০৫ ডিসেম্বর]
বিশ্বে ১০-১৫% দম্পতী বন্ধ্যাত্ব রোগে আক্রান্ত। এর মধ্যে প্রতি ৫০০ জন নারীর একজনের জন্মগত, প্রদাহজনিত ও অপারেশনজনিত ত্রুটিপূর্ণ জরায়ু। জরায়ু প্রতিস্থাপন শুরুর আগে এসব রোগীরা শুধুমাত্র দত্তক সন্তান বা জরায়ু ভাড়া করে মা হতে পারতেন। গত কয়েক বছর হল জরায়ু প্রতিস্থাপনের মাধ্যমেও বেশ কয়েকজন নারী মাতৃত্বের স্বাদ নিতে পেরেছেন। এর মধ্যে ব্রাজিলের এক নারীও রয়েছেন।

তিন সন্তানের মা, মৃত এক নারী যার দেহ থেকে গর্ভাশয় নিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল আরেক  ব্রাজিলীয় মহিলার তলপেটে। পরবর্তীতে প্রতিস্থাপিত গর্ভাশয়ে গ্রহীতা মহিলা জন্ম দিলেন এক কন্যা সন্তান। এটিই হল বিশ্বের প্রথম মৃতার গর্ভাশয় প্রতিস্থাপন করে সন্তান জন্মদানের রেকর্ড।

গত ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে স্ট্রোকে মৃত্যু হয়েছিল ৪৫ বছর বয়সী এক মহিলার। প্রায় সাড়ে ১০ ঘণ্টার অপারেশনের মাধ্যমে ওই মহিলার তলপেট থেকে ২২৫ গ্রাম ওজনের গর্ভাশয় সংগ্রহ করে ৩২ বছর বয়সী ব্রাজিলীয় মহিলার তলপেটে ঐ গর্ভাশয়টি প্রতিস্থাপন করা হয়। Mayer Rokitansky Küster Hauser (MRKH) syndrome রোগের কারনে জন্ম থেকেই তাঁর দেহে গর্ভাশয় ছিল না। কিন্তু তাঁর ডিম্বাশয় ছিল।

গর্ভাশয় প্রতিস্থাপনের প্রায় পাঁচ মাস পর গ্রহীতা মহিলার শরীরে কোনও সমস্যা দেখা যায়নি। তাঁর ঋতুস্রাব ও আল্ট্রাসাউন্ড রিপোর্ট স্বাভাবিক ছিল। তাঁর ডিম্বাশয় থেকে ডিম্বানু সংগ্রহ করে প্রতিস্থাপনের সাত মাস দশদিন পর গর্ভাশয়ে ভ্রুণ স্থাপন করা হয়েছিল। পঁয়ত্রিশ সপ্তাহ তিন দিন পর দুই কেজি ৫৫০ গ্রাম ওজনের কন্যা শিশু সিজারের মাধ্যমে জন্মলাভ করে। আমেরিকা, চেক প্রজাতন্ত্র ও তুরস্কের চিকিৎসকেরা এর আগে মৃত মহিলার গর্ভাশয় প্রতিস্থাপন করে সন্তান জন্ম দেওয়ার চেষ্টা করলেও সফল হননি। সবশেষে ব্রাজিলের São Paulo বিশ্ববিদ্যালয়ের Dr. Dani Ejzenberg এর নেতৃত্বে  চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা সফল।

অতীতেও প্রতিস্থাপিত গর্ভাশয় থেকে সন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু  গর্ভাশয়ের দাতারা ছিলেন জীবিত। সুইডেনে ২০১৩ সালে জীবিত মহিলার গর্ভাশয় প্রতিস্থাপন করে প্রথম সন্তানের জন্ম হয়েছিল। পরে ৩৯ বার চেষ্টা চালিয়ে সাফল্য মাত্র ১১ বার। তাই মৃত মহিলার গর্ভাশয় থেকে সন্তানের জন্ম দেওয়া বন্ধ্যাত্ব রোগীদের জন্য আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের এক মাইলফলক।

সুত্রঃ
Medical Journal THE LANCET.
PUBLIC RELEASE: 4-DEC-2018



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

দেশের বাহিরে বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৪২ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই