তারিখ : ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নান্দাইলে বোরো আবাদে ব্যস্ত কৃষক,শ্রমিক সঙ্কট

নান্দাইলে শীতকে উপেক্ষা করে বোরো আবাদে ব্যস্ত কৃষক,শ্রমিক সঙ্কট
[ভালুকা ডট কম : ২২ জানুয়ারী]
ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে ২২ হাজার ১৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ শুরু হয়েছে। তবে শীতকে উপেক্ষা করে বীজতলা ও শ্রমিক সঙ্কটের কারণে বোরো আবাদে কৃষকরা সমস্যায় পড়েছেন। জানুয়ারির ১ম সপ্তাহ থেকে শুরু করে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত বোরো আবাদ সম্পন্ন করা হয় এবং এই বোরো ধান কাটা হয় বৈশাখ-জৈষ্ঠ্য মাসের মধ্যে। কিন্তু শৈত্যপ্রবাহের কারণে বীজতলার রোপণকৃত বীজ নষ্ট হয়েছে যার ফলে বীজ চারা সঙ্কট রয়েছে। তাই চড়া দামে বীজচারা ও মুজুরি কিনে আবাদে এখন পুরো ব্যস্ত সময় পাড় করছে নান্দাইলের কৃষকগণ। শহরের বিভিন্ন খারখানায়, অটোবাইক, সিএনজি ইত্যাদি যানবাহন ও ছোটখাট ব্যবসার দিকে ঝুঁেক পড়ায় কৃষি শ্রমিকের সংকট দেখা দিয়েছে। শ্রমিক প্রতি রোজ ৫০০ টাকা করে অথবা প্রতি বিঘা জমিতে চারা লাগাতে ১৩শ থেকে ১৬০০ টাকা লাগছে।

উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের কৃষক রুবেল জানান, গরু মহিষ না থাকায় পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ করলেও মই দেওয়া যায় না। তাই মই দিতে নিজেদেরকেই ব্যবহার করতে হয়। তবে তেল ও সারের দাম কম থাকলে হয়তো চাষাবাদের খরচ পোষিয়ে উঠা সম্ভব হবে। কৃষক শামীম মিয়া জানান, শ্রমিক পাওয়া যায়না বলেই নিজেরাই বীজতলা, জমি প্রস্তুত সহ চারা রোপণ করছি। কারণ জমিতো চাষ করতে হবে তানাহলে হয় জমি নষ্ট হবে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে ধান চাষ না করলে না খেয়ে মরতে হবে। অপরদিকে শ্রমিক হেলাল উদ্দিন বলেন, এই শীতে কাদামাটি জমিতে কাজ করলে শরীরের অবস্থা খারাপতো হতে পারে। আবার সবকিছু জিনিসের দাম বাড়তি।

উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ নাসির উদ্দিন জানিয়েছেন ২২ হাজার ১৫ হেক্টর জমিতে বোর ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে । স্থানীয় জাত ৭৫ হেক্টর, উচ্চ ফলনশীল ২০ হাজার ২শত ২০ হেক্টর এবং হাইব্রীড ১ হাজার ৭শত ২০ হেক্টর জমিতে বোর ধান চাষ অব্যহত রয়েছে। এতে করে ৮৭ হাজার ৭শত ৮৯ মে:টন ধান নান্দাইলে উৎপাদিত হবে। লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য নান্দাইল কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সার্বিক তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। অপর দিকে চলতি বোর মৌসুমে নান্দাইলে ৪হাজার মে:টন ইউরিয়া সারের চাহিদা রয়েছে। কৃষি অফিসার জানান বিসিআইসি ১৩জন ডিলার পৌরসভা সহ ১২ ইউনিয়নে ১১৭জন তালিকা ভূক্ত খুচরা সার বিক্রেতা রয়েছে। জনগণের চাহিদা মোতাবেক তারা সার সরবরাহ করে যাচ্ছেন। উপ-সহকারী কৃষি অফিসারগণ বিষয়টি নিয়মিত তদারকি করে যাচ্ছেন। বর্তমানে সারা নান্দাইলে কৃষকগণ বোর জমিতে চাষাবাদ অব্যাহত রেখেছেন। কৃষকরা বলেন পানি সেচের বিষয়টি ভালো হলে এবং নিয়মিত বিদ্যুৎ সরবরাহ সহ সময়মত সার ও জমি পরিচর্যা করলে বাম্বার ফলনের আশা করা যায়।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

কৃষি/শিল্প বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৫৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই