তারিখ : ১৮ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

বিএনপির ৫ সদস্যের সংসদে যোগদান,ক্ষুব্ধ সিনিয়র নেতারা

বিএনপির ৫ সদস্যের সংসদে যোগদান,ক্ষুব্ধ সিনিয়র নেতারা
[ভালুকা ডট কম : ০১ মে]
শেষ মুহুর্তে অবস্থান পরিবর্তন করে বিএনপির পাঁচ সদস্যের সংসদে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ সিনিয়র নেতারা। অনেক নাটকীয়তার পর শেষ মুহুর্তে  দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সিদ্ধান্তেই  শপথ নিয়ে সংসদে যোগ দেন বিএনপি’র  পাঁচ এমপি। তবে দলীয় কৌশল হিসেবেই মহাসচিব মির্জা ফখরুল শপথ শপথ না নেওয়ায় তার আসন শূণ্য ঘোষিত হয়েছে।

এ নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন আলোচনা। বিএনপি সংসদে গেলেই এই সংসদ বৈধতা পাবে না বলে দাবী  করছেন দণলের শীর্ষ নেতারা। শুরু থেকেই শপথের বিপক্ষে থাকা সিনিয়র নেতারা বলছেন, এই সিদ্ধান্ত সঠিক না ভুল তা সময় আসলে বোঝা যাবে। এই সিদ্ধান্ত ভোটাররা পছন্দ করবে না বলেও ধারনা তাদের । তবে শপথের পর এখন খালেদা জিয়া জামিনে মুক্ত হলে দল লাভবান হবে বলেও মনে করছেন অনেকে।  দলের  পাঁচজন শপথ নিয়ে সংসদে যাবার পর  নেতাকর্মীরা এখন খালেদা জিয়ার জামিনের দিন গুনছেন।

ওদিকে বিএনপির নির্বাচিত এমপিদের সংসদে যোগ দেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা । ঐক্যফ্রন্টের নেতারা বলছেন, গত চার মাস জোটের রাজনীতি আটকে ছিল শপথ নেওয়া-না নেওয়ার মধ্যে। এ নিয়ে গলার মধ্যে একটি কাঁটা বিঁধেছিল যা শপথ নেওয়ার মাধ্যমে গিলে ফেলা হয়েছে। তাদের প্রশ্ন- বিএনপির শপথ নেওয়ার ইচ্ছা থাকলে এতদিন নাটক করার কী দরকার ছিল? আর কোনও কিছুর বিনিময়ে সমঝোতা হলে সেটাও জানতে চান তারা। বিএনপির সংসদ সদস্যদের শপথ ইস্যুতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আব্দুর রব বলেছেন, ‘৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা হলেও ২৯ তারিখ রাতেই ভোট ডাকাতি হয়। ফলে কয়েকজন শপথ নিলেই সংসদের বৈধতা হবে না। গণতান্ত্রিক শক্তি আরও ঐক্যবদ্ধ হবে এবং নতুন করে পুনর্গঠিত হবে।

ওদিকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সংসদে যোগ না দেয়া কৌশল নয়; অপকৌশলের অংশ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। আজ সকালে সকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে মে দিবস উপলক্ষে শ্রমিক লীগ আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল সংসদে যোগ না দেয়ায় বিএনপির জন্য ভালো হবে না। হানিফ বলেন, দলটির অন্য সদস্যরা শপথ নিলেন কিন্তু ফখরুল নিলেন না এর মাধ্যমে বিএনপির বিভক্তি স্পষ্ট। বিএনপির ভাঙন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র উল্লেখ  করে  হানিফ বলেন, বিএনপি জামায়াতের রাজনীতি মানেই অশুভ রাজনীতি।

অপরদিকে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট কারচুপিসহ বিভিন্ন অভিযোগে হাইকোর্টের নির্ধারিত আপিল ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা ঐক্যফ্রন্টের ৮০ পরাজিত প্রার্থীর মামলা আড়াই মাস অতিবাহিত হতে চললেও আপিল শুনানি নিয়ে অগ্রসর হননি আইনজীবীরা।

মামলাগুলো পরিচালনার দায়িত্বে থাকা আইনজীবীরা বলছেন, ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে মামলাগুলোর শুনানির উদ্যোগ নেওয়া যায়নি। এখন যেহেতু নির্বাচিত ৮ প্রার্থীদের শপথ বিষয়টি মীমাংসিত হয়েছে। ফলে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে ডেকে বিএনপির সঙ্গে কথা বলে আপিলের শুনানি উদ্যোগ নেওয়া হবে।

নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালে রুজু করা মামলার নথি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, প্রতিটি মামলায় প্রার্থীরা নিজ নিজ আসনের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘঠিত দুর্নীতি ও অনিয়মের ঘটনা বর্ণনা, ঘটনার স্বীকার ব্যক্তিদের নামসহ তাদের পূর্ণ পরিচয় এবং ঘটনার সাক্ষীদের নাম-পরিচয় বৃত্তান্ত উল্লেখ করা  হয়েছে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

রাজনীতি বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৩ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই