তারিখ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

রক্তের ফেরিওয়ালা এজেড মিজান

রক্তের ফেরিওয়ালা এজেড মিজান
[ভালুকা ডট কম : ১৮ জুন]
“রক্ত দিন জীবন বাঁচান” এই প্রতিপাত্যকে হৃদয়ে ধারন করে রক্ত দানে উৎসাহ প্রদান ও রোগীদের জীবন বাঁচাতে রক্ত সংগ্রহ কাজে স্বেচ্ছায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে এক মহানুভবতার নজির স্থাপন করেছেন নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার এজেড মিজান (৪০)। তিনি জেলার পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর পৌর এলাকার কলোনীপাড়ার বাসিন্দা। মৃত আব্দুর রহমানের সুযোগ্য পুত্র। তিনি বর্তমানে নজিপুর বাসস্ট্যান্ড ধামইরহাট রোডের বিশিষ্ট মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী ও নজিপুর বাসষ্ট্যান্ড বণিক সমিতির পর পর তিন বার নির্বাচিত সফল সাধারণ সম্পাদক।

নজিপুর বাজারের জাহাঙ্গির আলম বলেন, একজন গরীব অসহায় রোগীর রক্তের প্রয়োজনে রক্তের ফেরিওয়ালা এজেড মিজান আমাকে ফোন দিল আমি সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে গিয়ে রক্ত দিলাম,এজেড মিজান বলেন, এখন পর্যন্ত ৬ বছর ধরে প্রায় তিন হাজার লোকের রক্ত সংগ্রহ করে আসছি। কোন রোগীর রক্ত প্রয়োজন হলে জানতে পেরে সঙ্গে সঙ্গে সেচ্ছায় রক্তের ব্যবস্থা করে থাকি। কেউ রক্ত দান করতে চাইলে অথবা কেউ রক্ত নিতে চাইলে তাদের দুজনেরই রক্তের গ্রুপ, নাম ঠিকানা ও মোবাইল নম্বর নোট বুকে লিখে রাখি সঙ্গে সঙ্গে। কারো রক্তের প্রয়োজন হলে ওই লিষ্ট অনুযায়ী আগ্রহ রক্ত দাতাদের সহযোগীতায় সেচ্ছায় রক্ত দানে উৎসাহ প্রদান করি। এতে করে ওই রোগীদের জীবন বাঁচে।

তিনি আরো জানান, রক্ত দানে ও রক্ত সংগ্রহ করে মানুষের জীবন বাঁচানো শুধু ইহকালের উপকার নয় বরং ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক এর ফল পরকালেও পাব বলে আমি মনে করি। এতেই আমার তৃপ্তি। আমি যতদিন বাঁচবো ততদিন রক্ত দানে মানুষের উপকার করে যাব। এখন আমাকে সবাই রক্তের ফেরিওয়ালা বলেই চিনে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

পাঠক মতামত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই