তারিখ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মহাসড়কে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত মাশুল গুণবে জনগন-ন্যাপ

মহাসড়কে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত মাশুল গুণবে জনগন-বাংলাদেশ ন্যাপ
[ভালুকা ডট কম : ০৬ সেপ্টেম্বর]
মহাসড়কে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত মাশুল গুণবে জনগন বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেছেন, যেসব হাইওয়ে বাণিজ্যিকভাবে বেশি ব্যবহৃত হয়, সেটায় টোল হতে পারে। এর ভালোমন্দ দুইটি দিকই আছে। এর ফলে সাধারণভাবে মানুষের জীবনযাত্রার খরচ বাড়বে। কারণ যানবাহনের খরচ বাড়লে ভাড়াও বাড়বে।

নেতৃদ্বয় বলেন, যে টোলই বসানো হোক না কেন, সেটা শেষ পর্যন্ত তো জনগণকেই দিতে হবে। বাস-ট্রাকের ভাড়া বাড়বে, ফলে জনগণের ওপর, ব্যবসায়ীদের ওপর চাপ আরো বাড়বে। সড়কগুলো যুগোপযোগী করা হচ্ছে না, আধুনিক করা হচ্ছে না, দুর্ঘটনা ঠেকাতে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। ফলে এই টোল বসানোর যে কথা বলা হচ্ছে, তাতে কতটা সুফল আসবে, তা নিয়ে সংশয় আছে। তাই তহবিল গঠনের চেয়ে বরং সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার ওপর সরকারের বেশি নজর দেয়া উচিত। শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় এসব কথা বলেন।

তারা বলেন, টোল আদায় ও এক্সেল লোড কেন্দ্র স্থাপনের নির্দশনার পাশাপাশি কোনো ক্ষেত্রে যেন টেম্পারিং বা দুর্নীতির কোনো সুযোগ না থাকে সে বিষয়েও সতর্ক সংকেত দিয়েছেন। তবে সর্বাগ্রে মহাসড়কের নিরাপত্তা, শৃঙ্খলা ও গতিশীলতা নিশ্চিত করতে হবে। যেখানে আমাদের প্রধান প্রধান জাতীয় মহাসড়কগুলোতে সারাবছরই যানজটের ধকল পোহাতে হচ্ছে, সেখানে নতুন করে টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত এবং এক্সেল লোড কন্ট্রোল সেন্টার বসানোর পদক্ষেপ যানজট আরো বাড়িয়ে তুলবে কিনা সে বিষয়ও বিবেচনায় রাখতে হবে।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, মহাসড়কের নিরাপত্তা, যানজট নিরসন, রক্ষণাবেক্ষণসহ প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান যদি মহাসড়কে টোল আদায়ের সম্ভাবনা কাজে লাগানোর সর্বাধুনিক পদ্ধতি, প্রযুক্তি ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করেই তা করতে হবে। একই সাথে যানজট নিরসন, টোল আদায় এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। জনগণের রাজস্বে বিশ্বের সর্বোচ্চ খরচে সর্বনিম্ন অবকাঠামো এবং নিম্নমানের কাজের অপসংস্কৃতি থেকে বের হয়ে আসতে হবে। প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নে অস্বচ্ছতা দূর করার মাধ্যমে অবকাঠামো নির্মাণ খরচ কমিয়ে আনা এবং কাজের যথাযথ মান নিশ্চিত করা সম্ভব। টোল আদায়ের মাধ্যমে মহাসড়কের রক্ষণাবেক্ষণের উদ্যোগ নিঃসন্দেহে সময়োপযোগী। সেই সাথে টোল আদায়কে টেম্পারিং, অস্বচ্ছতা এবং হয়রানিমূলক যে কোন কর্মকান্ড থেকে মুক্ত রাখার কার্যকর পদক্ষেপ আগেই গ্রহণ করতে হবে। তা নাহলে একটি ভালো উদ্যোগ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যাবে।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, আমাদের প্রশ্ন, মহাসড়কে টোল আদায় করে বরাদ্দের অপ্রতুলতা হয়তো কাটবে, বরাদ্দ অর্থের সদ্ব্যবহারের অভাব ঘুচবে কি? এটাও ভুলে যাওয়া চলবে না, সড়ক-মহাসড়ক বিপর্যস্ত হওয়ার আরেকটি প্রধান কারণ অনুমোদিত মাত্রার চেয়ে বেশি ওজনের মালামাল পরিবহন। দেশের কয়েকটি মহাসড়কে ওজন মাপার ব্যবস্থা থাকলেও তা কার্যত অকার্যকর। আলোচ্য সভায় গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কগুলোর উৎসমুখে 'এক্সেল লোড নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র' স্থাপনের সিদ্ধান্ত এ ক্ষেত্রে সমাধান দিতে পারে বৈকি। কিন্তু যদি সংস্কার কাজে অনিয়ম রোধ করা না যায়, তাহলে সকলই গরল ভেল! টোলের অর্থ আদায় করে বছর বছর ব্যক্তি বা গোষ্ঠীবিশেষের পকেট ভারী করার কোনো যুক্তি আছে কি? এও মনে রাখতে হবে, মহাসড়কে টোল ব্যবস্থা চালু হলে পরিবহন খরচ বেড়ে যাবে। তাতে করে চাপে পড়বে সাধারণ মানুষই। টোলের অর্থ যদি মহাসড়ক রক্ষণাবেক্ষণের টেকসই হাতিয়ার না হয়, তাহলে এই চাপ বাড়িয়ে লাভ কী?#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

রাজনীতি বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই