তারিখ : ২২ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

সুশাসন না থাকায় গণপরিবহনেও নৈরাজ্য চলছে-সুশীল সমাজ

সুশাসন না থাকায় গণপরিবহনেও নৈরাজ্য চলছে-সুশীল সমাজ
[ভালুকা ডট কম : ১৪ সেপ্টেম্বর]
দেশে সামগ্রিকভাবে সুশাসন না থাকার কারণে গণপরিবহনেও নৈরাজ্য চলছে। দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর ব্যবস্থা ও আইন প্রণয়ন না করার ফলে সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিত হচ্ছে না। এ জন্য গোটা পরিবহনখাতকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকেই। রাজধানীতে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি আয়োজিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ এমন অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর প্রায় সাড়ে ১৩ লক্ষ মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান। বাংলাদেশেও সড়কে মৃত্যুর মিছিল নিত্যদিনের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। গতবছর নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশব্যাপী ব্যাপক ছাত্র বিক্ষোভ হলেও পরিস্থিতির কোন দৃশ্যমান উন্নতি নেই।

এ প্রসঙ্গে বিশিষ্ট মানবাধিকার নেত্রী ও সাবেক তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল বলেছেন সামগ্রিক সুশাসন ছাড়া পরিবহন সেকটরে নৈরাজ্য ঠেকানো যাবে না। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকারকে তার দায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে সুলতানা কামাল বলেন, জনগণের সাথে সম্পর্কিত এ দলটি দীর্ঘ সময় ধরে ক্ষমতায় থেকে নাগরিকদের দায়িত্বশীল হিসেবে গড়ে তুলতে ব্যর্থ হয়েছে। তারা বরং নাগরিকদের ক্রমশ: দূরে সরিয়ে দিয়ে তাদেরকে এখন প্রজায় পরিণত করে ফেলেছে।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, তারা সরকারকে অনুরোধ করেছেন, পরিবহন সেক্টরের সাথে সম্পর্কিত সকল পক্ষকে নিয়ে যাতে একটা সার্বিক পরিকল্পনা নেয়া হয়। তাছাড়া, অনুষ্ঠান থেকে দাবি জানানো হয়েছে যাতে সকলের মাঝে সচেতনা সৃষ্টির জন্য জাতীয়ভাবে প্রতি বছর ১৩ সেপ্টেম্বরকে যাত্রী অধিকার দিবস হিসেবে পালন করা হয়। একই সাথে এ দিনটিকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেবার জন্য জাতিসংঘের প্রতিও অনুরোধ জানিয়েছে যাত্রী কল্যান সমিতি।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন সম্প্রতি এক পরিসংখ্যানে জানিয়েছে, গত ঈদ-উল-আযহার ছুটিতে নয় দিনে সারা দেশে  ১৩৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৮৫ জন এবং আহত হয়েছেন ৩৫৫ জন। এর আগে ঈদ-উল ফিতরে দুর্ঘটনার সংখ্যা ছিল ১২৭, নিহত হন ১৮৪ জন এবং আহত হন ৩৩২জন। সড়কে নৈরাজ্যের কারণে প্রাণহানি বা অঙ্গহানি ছাড়াও অসংখ্য কর্মঘন্টা নষ্ট হচ্ছে রাস্তায়। বিশেষ করে  রাজধানী রাজপথে ঘণ্টার পর  পর ঘন্টা সময় নষ্টের  সাথে নাগরিকদের জীবনী শক্তিও হ্রাস পাচ্ছে বলে অভিমত দিয়েছেন বিশিষ্টজনেরা।

পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে  ২০১৮ সালে মোট ৩ হাজার ১০৩ সড়ক দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। এসব দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৪ হাজার ৪৩৯ জন। নিরাপদ সড়ক চাই আন্দেআলনের হিসেব অনুযায়ী এসব ঘটনায় ৪ হাজার ৪৩৯ জনের প্রাণহানি হয়েছে আর  আহত হয়েছেন ৭ হাজার ৪২৫ জন। নিহতদের ৪২ শতাংশ ক্ষেত্রে গাড়ি চাপায়, ২৪ শতাংশ ক্ষেত্রে দুই বাহনের মুখোমুখি সংঘর্ষে, ৭ শতাংশ ক্ষেত্রে গাড়ি উল্টে, ৪ শতাংশ ক্ষেত্রে গাড়ি খাদে পড়ে দুর্ঘটনায় পতিত হন। গতবছর দুর্ঘটনায় যারা প্রাণ হারিয়েছেন, তাদের মধ্যে ৫৬৬ জনই চালক। এদের মধ্যে মোটরসাইকেল চালকের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ১৬০ জন। এছাড়া ৬৪ জন বাসচালক ও ৫৯ জন ট্রাক চালক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন গতবছর।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সড়ক ও মহাসড়ক অধিদপ্তর ২০১৬-১৭ সালের এক জরিপে দুর্ঘটনার শিকার হওয়া কোন কর্মক্ষম ব্যক্তির অর্থনৈতিক ক্ষতি, চিকিৎসার খরচ, জীবনের মূল্য, গাড়ির ক্ষতি এবং প্রশাসনিক ও অন্যান্য সব হিসেবে একটি চিত্র তুলে ধরে জানিয়েছে, একটি প্রাণঘাতী সড়ক দুর্ঘটনা থেকে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার মতো অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়। তবে মারাত্মক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে এ ক্ষতির পরিমান প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা এবং সাধারণ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে এক লক্ষ টাকার বেশি।

সরকারি ওই গবেষণায় বলা হয়েছিল, সড়ক দুর্ঘটনায় একটি কর্মক্ষম ব্যক্তির প্রাণ হারানোর ফলে অর্থনৈতিকভাবে গড় ক্ষতির পরিমাণ ২৪,৬২,১০৬ টাকা। আর মারাত্মকভাবে আহত হলে সেক্ষেত্রে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় গড়ে ২০,৯৭৭ টাকা। তবে সাধারণ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে তা মাত্র ১,৫৯৮ টাকা। তবে সড়ক দুর্ঘটনায়  আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির হিসেবের চেয়েও বড় হিসেব হল “একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না”।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অন্যান্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২২৩ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই