তারিখ : ২২ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকায় নারী সাংবাদিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ভালুকায় নারী সাংবাদিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
[ভালুকা ডট কম : ১৫ সেপ্টেম্বর]
ভালুকায় সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় আম্বিয়া খাতুন দীনা (৪৫) নামে এক সাংস্কৃতিক কর্মী, নারী সাংবাদিকের লাশ উদ্ধার করেছে মডেল থানা পুলিশ। রোববার সকালে পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড মেজরভিটা এলাকার একটি বহুতল ভবনের ভাড়া বাসার চারতলা থেকে লাশটি উদ্ধার করে। নারী সাংবাদিকের এ মৃত্যু নিয়ে পৌর সদর জুড়ে আলোচনা চলছে এটি হত্যা না আত্নহত্যা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মাহমুদপুর গ্রামের আনোয়ার এলাহীর মেয়ে ভালুকা সুরভী সাংস্কৃতিক সংস্থার কন্ঠশিল্পি ও আজকের সংবাদ পত্রিকার ভালুকা প্রতিনিধি আম্বিয়া খাতুন দীনা ওরফে দীনা খান পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড মেজরভিটা এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুস সাত্তারের বহুতল ভবনের ৪র্থ তলা ভাড়া নিয়ে একাই বসবাস করে আস ছিলেন। শনিবার রাতের কোনো এক সময় বাসার সিলিং ফ্যানের সাথে উড়না বেঁধে গলাই পেঁচিয়ে আত্নহত্যা করেন। রোববার সকালে স্থানীয়দের খবরে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ ওই বাসার ৪র্থতলায় ফ্যানের সাথে গলায় উড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলন্ত লাশটি উদ্ধার করে। পরে ময়না তদন্তের জন্য লাশটি ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, নিহত দীনা খান স্থানীয় এনজিও আসপাডা ও ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে বিপুল অঙ্কের টাকা ঋণগ্রস্থ ছিলেন। তাছাড়া এক ব্যক্তির ২৬ লাখ টাকার দায়েরকৃত চেক ডিজওনার মামলায় তিনি ৬ মাসের সাজাপ্রাপ্ত হন। ওই মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেন। আদালত তাকে একদিন পর পাওনা টাকা পরিশোধ ও আপিলের শর্তে তাঁকে জামিন দেন। গত ২৬আগস্ট টাকা পরিশোধের দিন ধার্য ছিল কিন্ত তিনি ওই দিন আদালতে হাজিরা দেন নি। পরে পাওনা দারদের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে রোববার পাওনা টাকা ফেরত দেয়ার কথা ছিলো। ব্যক্তিগত জীবনে  বছর খানেক পূর্বে তার স্বামী জামান মারা যান। দীনা খান দুই ছেলে সন্তানের জননী ছিলেন। এক ছেলে বিয়ে করে আলাদা বাসা ভাড়া করে ভালুকা সদরেই থাকেন। আরেক ছেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখা পড়া করছেন।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, লাশটি উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। মৃত্যুরহস্য ময়না তদন্তরিপোর্ট পাওয়ার পর জানা যাবে। এ ব্যাপারে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

উল্লেখ্য,নারী সাংবাদিক দীনা খান ভালুকা পৌরসভায় ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম খানের কাছ থেকে ২৬লাখ টাকা ও ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নুরুল ইসলাম বাদশার কাছ থেকে ৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা ব্যাংকের ভূয়া চেক দিয়ে হাতিয়ে নিয়েছে। এসব চেকে ব্যাংকে কোন টাকা না পাওয়ায় সাইফুল ইসলাম সহকারী জর্জ আদালতে (মামলা নং- ১৩৬১/১৬) ২৬ লাখ টাকার চেক জালিয়াতির মামলা করে। নুরুল ইসলাম বাদশা ৪৭৭/১৭ নং মামলা একই আদালতে দায়ের করে। পরে উভয় মামলায় তার ১৬ মাস কারাদন্ড ও ৫৫ লাখ টাকা বাদিকে প্রদান করার রায় দেয় আদালত। এছাড়াও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভতিৃ, মহিলা ক্যাডেট কলেজে ভর্তির কথা বলে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এই আত্মহত্যার ঘটনায় পাওনাদাররা হতাশা গ্রস্থ হয়ে পরেছে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২২৩ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই