তারিখ : ২০ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম


বিস্তারিত বিষয়

রাষ্ট্রপতি আহসান উদ্দিন চৌধুরীর ১৯তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

গৌরীপুরের কৃতি সন্তান রাষ্ট্রপতি আহসান উদ্দিন চৌধুরীর ১৯তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত
[ভালুকা ডট কম : ৩০ আগস্ট]
ময়মনসিংহের গৌরীপুরের কৃতী সন্তান  রাষ্ট্রপতি বিচারপতি  আবুল ফজল মুহাম্মদ আহসান উদ্দিন চৌধুরীর ১৯ তম মৃত্যু বার্ষিকী  রবিবার (৩০ আগস্ট) বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে।মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে তার নিজ গ্রাম অষ্টঘর গ্রামের বাড়ীর আঙ্গিনায় তারই প্রতিষ্টিত মসজিদে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

এতে গৌরীপুর  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোফাজ্জল হোসেন খান, বি,আর,ডি,বি’র চেয়ারম্যান ও আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক  মাসুদুর রহমান শুভ্র, বোকাইনগর  ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আঃ হেলিম, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিব উল্লাহ হাবিবসহ  মসজিদের সংখ্যাধিক মুসল্লি ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন। তিনি ২০০১ সনে ৩০ আগস্ট ঢাকার ধানমন্ডির নিজ বাড়িতে  ইন্তেকাল করেন।

১৯১৫ সালের ১ জুলাই গৌরীপুর উপজেলার বোকাইনগর ইউনিয়ন  অষ্টঘর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম  পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন রাষ্ট্রপতি বিচারপতি  আবুল ফজল মুহাম্মদ আহসান উদ্দিন চৌধুরী । তাঁর  পিতা মৌলভী মোঃ নফিজ উদ্দিন চৌধুরী ও মাতা মোছাঃ মাতাব জান। গ্রামের স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করে ১৯৩২ সালে গৌরীপুর রাজেন্দ্র কিশোর উচ্চ বিদ্যালয় হতে মহসিন  বৃত্তিসহ আরবিতে  ডিসটিংকশান নিয়ে ১ম  বিভাগে ম্যাট্রিক পাশ করেন। পরে তিনি প্রিন্সিপাল ইব্রাহিম খাঁর তত্ত্বাবধানে  ও অনুপ্রেরণায় টাঙ্গাইলের করটিয়া কলেজ হতে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন তিনি।  ময়মনসিংহ  আনন্দ মোহন কলেজ থেকে  বি এ পাশ করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজিতে এমএ শ্রেনীতে ভর্তি হওয়ার পরে  বিষয় পরিবর্তন করে আইন বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৪১ সালে  প্রথম শ্রেণীতে  ১ম হয়ে 'ল'  পরীক্ষায়  উত্তীর্ণ হন।  অসম্ভব মেধাবী আহসান উদ্দিন চৌধুরী পরে কলিকাতা  পাবলিক সার্ভিস কমিশনে প্রতিযোগীতা মূলক মুন্সেফ পরীক্ষায় পাশ করেন।

১৯৪২ সনে  ৮ মে ময়মনসিংহ সদর কোর্টে যোগদানের  মধ্যদিয়ে আহসান উদ্দিন চৌধুরীর  কর্মজীবন শুরু  হয় । ১৯৪৩ সালে  মুন্সেফ , ১৯৫৪ সনে ঢাকার  সাব জজ, ১৯ ৫৫ সালে সহকারী সেসন জজ, ১৯৫৭ সালে চট্টগ্রামের  এডিসন্যাল জজ নিযুক্ত হন। ১৯৬৭ সনে ঢাকা জেলা জজ,১৯৬৮ সনে ১৭ ডিসেম্বর  হাইকোর্টের বিচার পতি  নিযুক্ত হন।  পরে তিনি সুপ্রিম কোর্টের  বিচারপতি হিসাবে  অবসর গ্রহন করেন। বিচারপতি  আবুল ফজল মুহাম্মদ আহসান উদ্দিন চৌধুরী দেশের  এক ক্রন্তিকালে ১৯৮২  সালে ২৪ মার্চ  গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের  রাষ্ট্রপতি নিযুক্ত হন। নবম রাষ্ট্র পতি হিসাবে  ১৯ ৮৩ সালে  ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত  ছিলেন। রাষ্ট্রপতি বিচারপতি  আবুল ফজল মুহাম্মদ  আহসান উদ্দিন চৌধুরীর শিক্ষা ও কর্ম জীবনের  বিচিত্র অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। তারই আলোকে তিনি রচনা করেন 'স্মৃতি অমলিন' নামক  গ্রন্থ।  নিজ জন্মভূমি বোকাইনগর, গৌরীপুরের তাঁর শৈশব,কৈশোর নানা ঘটনাসহ কর্মজীবনে  নানা বিষয়  স্থান পায় এই মূল্যবান গ্রন্থে।

তিনি ১৫ ডিসেম্বর ১৯৮২ সনে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে গৌরীপুর  উন্নিত  থানার শুভ উদ্বোধন করেন।  পরবর্তিতে তাঁরই  উদ্যোগে গৌরীপুর কলেজ ও তাঁর  প্রিয় বিদ্যাপীঠ রাজেন্দ্র কিশোর উচ্চ  বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ  করেন।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

শোক সংবাদ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৫ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই