তারিখ : ০১ নভেম্বর ২০২০, রবিবার

সংবাদ শিরোনাম


বিস্তারিত বিষয়

নওগাঁয় গৃহীনদের জন্য (টি আর) কর্মসূচির বাসগৃহ নির্মাণ

নওগাঁয় গৃহীনদের মাঝে আশার আলো জাগিয়েছে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ
[ভালুকা ডট কম : ২৪ সেপ্টেম্বর]
নওগাঁ সদর উপজেলা এবং বদলগাছি উপজেলাতে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টি আর) কর্মসূচির আওতায় গৃহহীনদের মাঝে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে।২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে জেলার সদর উপজেলার ২৪ (চব্বিশ) জন যার নির্মিত ব্যয় ৭১লক্ষ ৯৬হাজার ৬শত ৮০টাকা এবং বদলগাছি উপজেলার ২০(বিশ) জন যা ৫৯ লক্ষ ৯৭হাজার ২শত টাকা ব্যয়ে অসহায় গৃহহীনদের মাঝে গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টি আর) কর্মসূচির আওতায় মোট ১কোটি ৩১লক্ষ ৯৩হাজার ৮শত ৪০ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে।

উপকারভোগীরা তাদের নিজ জমিতে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ সরকারের কাছে থেকে পেয়ে বর্তমান সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন। দীর্ঘদীন অচল বাসগ্রহ এবং জমি আছে কিন্তু গৃহ নির্মান করতে পারছেন না এ ভাবে বসবাস করতে থাকা পরিবারগুলোকে সরকার নিজ খরচে গৃহ নির্মান করে দেওয়া তারা অনেক উপকৃত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ।

জেলার বদলগাছি উপজেলার কোলা ইউনিয়নের ঝাড়্ঘড়িয়া গ্রামের উপকারভুগি মিনা বেগম জানান- চারজনের পরিবার নিয়ে তার বসবাস করতে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়েছিলো। বৃষ্টি, রোদ এবং শীতের সময়ের বিগত দিনের বিপর্যয়ের কবল থেকে এবার তারা রক্ষা পেয়েছেন। তার স্বামী একজন দিন মজুর। পরিবারের দৈনন্দিন খারচ যোগাতে তার অনেক কস্ট সহ্য করতে হয়।ভাঙ্গা বাড়ি মেরামত করার চিন্তা ভাবনা করেও পরিবারের অভাব অনটনের কারনে তা হয়ে ওঠেনি। সরকারি ভাবে দরখাস্ত করবার পর তারা বাড়ি পরিদর্শন শেষে তাদের বাড়ি নতুন করে নির্মান করে দিয়ে যান। এতে করে বদলগাছি উপজেলা প্রশাসন এবং সরকারের প্রতি তারা এবং তাদের পরিবার অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ।

এদিকে বদলগাছি উপজেলাতে ২০টি অসহায় গৃহহীন পরিবারের মাঝে গৃহনির্মান প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মাদ আবু তাহির বলেন সরকারী প্রকল্পের আওতায় উপজেলায় গৃহহীন পরিবারের মাঝে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মান প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। স্বচ্ছ পর্যবেক্ষন এবং সঠিক তদারকিতে নির্মান ব্যয় নিশ্চিত করার কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। উপকারভোগীরা নতুন বাসগৃহ পেয়ে উপজেলা প্রশাসন এবং সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

তিনি আরো বলেন বর্তমান সরকার সাধারণ মানুষের কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারবাহিকতায় উপজেলায় ২০টি পরিবার নতুন করে বাসগৃহ পেয়েছেন। এতে করে সরকার তার কাজের মধ্যদিয়ে নিজ গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে এবং সাধারণ মানুষ সরকারি সুযোগ সুবিধা গ্রহন করছে। সঠিক সময়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন হওয়ায় উপজেলা প্রকল্প ব্যস্তবায়ন কর্মকর্তা এবং কর্মচারিবৃন্দের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন।

এদিকে জেলার সদর উপজেলার ২৪টি অসহায় গৃহহীন পরিবারের মাঝে সরকারি বাড়ি নির্মান কাজ সম্পর্ন হয়েছে। সদর উপজেলার কৃত্তিপুর ইউনিয়নের আতিয়া গ্রামের আব্দুল মান্নান বলেন তিনি একজন হতদরিদ্র কৃষক। গ্রামের ভিটামাটিতে ৬.৫শতক জায়গা জুড়ে তার ভাঙাচুরা বাড়ি ছিলো। ঝড় বৃষ্টিতে পরিবার নিয়ে সেই বাড়িতে বসবাস করতে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে তাদের। ঝাড়ের সময় ভাঙ্গা বাড়ির ভাঙ্গা চাল থাকতনা সঠিক স্থান অনুযায়ী।

তিনি আরো বলেন এসকল সমস্যায় জর্জরিত হয়ে তিনি সরকারি ভাবে বাড়ি নির্মানের জন্য আবেদন করেন। উপজেলা প্রশাসন থেকে বাড়ি পরিদর্শন করার কিছুদিন পর থেকে বাড়ি নির্মানের কাজ শুরু হয়। এখন তারা নতুন বাড়িতে পরিবার নিয়ে ঊঠেছেন। হাসি ফুটেছে তার নিজের এবং পরিবারের সকলের মুখে। সরকার থেকে নতুন বাড়ি পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী এবং তার সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তিনি এবং তার পরিবারের সকলে ।

সদর উপজেলায় গৃহহীনদের মাঝে গৃহনির্মান প্রসঙ্গে সদর উপজেলা নির্মাহী কর্মকর্তা মির্জা ইমাম উদ্দিন বলেন উপজেলায় ৭১লক্ষ ৯৬হাজার ৬শত ৮০টাকা ব্যয়ে সরকারি ভাবে ২৪জন অসহায় গৃহহীন পরিবারের মাঝে নতুন করে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ কাজ সম্পর্ন করে পরিবারগুলোর বসবাসের উপযোগী করে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। স্বচ্ছ নির্বাচন এবং নির্মানব্যয়ে এই প্রকল্পের কাজ সঠিক সময়ে সম্পুর্ন হয়েছে।

তিনি আরো বলেন উপকারভুগীরা তাদের নতুন বাড়ি পেয়ে সরকারকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। যারা অসহায় যাদের জমি আছে ঘর নাই গৃহহীন পরিবারের মাঝে সরকারের দেওয়া এমন প্রকল্পে উপকার পাচ্ছেন অসহায় গ্রহহীন মানুষ। সঠিক সময়ে পরিবারগুলোর হাতে নতুন বাড়ি নির্মান এবং তা হস্তান্তর করায় উপজেলা প্রকল্প ব্যস্তবায়ন কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের প্রতি ধন্যবাদ জানান এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

দুই উপজেলার গৃহহীন পরিবারের মাঝে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মান প্রকল্প বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে নওগাঁ সদর উপজেলা প্রকল্প ব্যস্তবায়ন কর্মকর্তা এবং বদলগাছি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ( অতিরিক্ত দায়িত্ব) প্রকৌশলী মাহাবুবুর রহমান বলেন উপকারভুগীরা উপজেলায় আবেদন করার পরিপেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন তাদের গৃহনির্মান উপযোগী কিনা তা পর্যবেক্ষনের মাধ্যমে নির্বাচন করেছে। প্রকল্প হাতে পাওয়ার পর থেকে কাজ অতি দ্রুত সম্পর্ন করা হয়েছে। কাজ শেষে অসহায় পরিবারগুলোর হাতে তা সঠিক সময়ে হস্তান্তর করা হয়েছে। এতে করে ওই অসহায় পরিবার গুলো সঠিক সময়ে তাদের নতুন বাড়িতে বসবাস শুরু করতে পেরেছেন।

তিনি আরো জানান নওগাঁ সদর এবং বদলগাছি উপজেলার মোট ৪৪জন অসহায় পরিবারের মাঝে সরকার কর্তৃক দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি নির্মান করে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এই ৪৪টি পরিবারের মাঝে গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টি আর) কর্মসূচির আওতায় গৃহীনদের মাঝে দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ ১কোটি ৩১লক্ষ ৯৩হাজার ৮শত ৪০ টাকা ব্যয়ে নির্মান করে তা উপকারভুগীদের মাঝে হস্তান্তর করা হয়েছে।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জীবন যাত্রা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৬ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই