তারিখ : ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

গৌরীপুরের পৌর মেয়রকে দল থেকে বহিষ্কার

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা শুভ্র হত্যাকান্ডের ঘটনায়
গৌরীপুরের পৌর মেয়রকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও দল থেকে বহিষ্কার
[ভালুকা ডট কম : ২০ অক্টোবর]
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিআরডিবির চেয়ারম্যান পৌরসভার আগামী নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে তৃতীয় দিনেও উত্তাল ছিল গৌরীপুর। মধ্যবাজার কৃষ্ণচূড়া চত্বরে মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ। অপরদিকে পৌর মেয়রের বাসা-বাড়ি ও দোকানপটে ভাংচুর-অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে কর্মবিরতি পালন করেছে গৌরীপুর পৌরসভার কর্মচারীরা। শুভ্র হত্যাকান্ডের সঙ্গে গৌরীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান ও দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকাল ৫টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির এক জরুরী সভা বঙ্গবন্ধু চত্বরস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ হেলাল উদ্দিন আহাম্মেদ। সভায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যাকান্ডের সঙ্গে গৌরীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম জড়িত থাকার অভিযোগে এবং সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান ও দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। তিনি জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডাঃ হেলাল উদ্দিন আহাম্মেদ ও সাধারণ সম্পাদক বিধু ভূষণ স্বাক্ষরিত বহিষ্কার আদেশে পত্র জেলা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগে পাঠানো হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ১৪৮ ময়মনসিংহ-৩ গৌরীপুর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদিন আহমেদ।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ বোরহান উদ্দিন জানান, সোমবার (১৯ অক্টোবর) রাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যাকান্ডের ঘটনায় ছোট ভাই আবিদুর রহমান প্রান্ত বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় প্রধান আসামী করা হয়েছে উপজেলা বিএনপির (একাংশের) যুগ্ম আহ্বায়ক ও মইলাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদকে। মামলায় ১৪জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা ৭/৮জনকে আসামী করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ, মইলাকান্দা ইউনিয়নের পশ্চিম কাউরাট গ্রামের চান মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়া (৩২), ইউনুছ আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৩২) ও আব্দুল খালেকের ছেলে মজিবুর রহমান (৩০) কে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

রাজনীতি বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৮ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই