তারিখ : ১২ মে ২০২১, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নওগাঁর ৩টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন

নওগাঁর ৩টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন
[ভালুকা ডট কম : ১৩ এপ্রিল]
নওগাঁর নিয়ামতপুর, পোরশা ও সাপাহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকার সরকারি বাস ভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন খাদ্যমন্ত্রী ও নওগাঁ-১ (নিয়ামতপুর, পোরশা ও সাপাহার) আসনের সাংসদ সাধন চন্দ্র মজুমদার। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু হওয়ায় তীব্র মাত্রায় অক্সিজেন সংকটে পড়া রোগীরা বিশেষ করে করোনা আক্রান্ত জটিল রোগীদের সেবা দেওয়া সহজ হবে।

হাসপাতালগুলোতে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্লান্ট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নিজ কার্যালয় থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশীদ। এছাড়া এই অনুষ্ঠানে নিজ কার্যালয় থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন নওগাঁর পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়া ও সিভিল সার্জন ডা: এবিএম আবু হানিফ। এছাড়া পোরশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পোরশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমুল হামিদ রেজা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ মন্জুর মোরশেদ চৌধুরী, নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমৎেপ্লক্সে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপজেলার ইউএনও জয়া মারীয়া পেরেরা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদ, সাপাহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাপাহারের ইউএনও কল্যাণ চৌধুরী, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংশ্লিষ্ট উপজেলা পরিষদগুলোর বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির তহবিল থেকে হাসপাতালগুলোতে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপন করা হয়। প্রতিটি হাসপাতালে অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনে খরচ হয়েছে ২০লাখ টাকা করে। ৩৬টি করে অক্সিজেন সিলিন্ডার একসঙ্গে যুক্ত করে প্রত্যেকটি প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে। প্রত্যেক সিলিন্ডারে ৬দশমিক ৮ঘনমিটার অক্সিজেন গ্যাস রয়েছে। কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্লান্ট থেকে প্রতিটি হাসপাতালে একসঙ্গে ১৮জন করে রোগীকে অক্সিজেন দেওয়া যাবে।

সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্ট চালু হওয়ায় সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্মকর্তারা স্বস্থি প্রকাশ করে বলেন, কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপন হওয়ায় করোনা আক্রান্ত জটিল রোগীদের রোগীদের চিকিৎসাসেবা এখন অনেকটা সহজ হবে। সেই সঙ্গে আক্রান্তদেও মধ্যে মৃত্যুর হার কমে আসবে বলে চিকিৎসকেরা আশা করছেন।

পোরশা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান বলেন, এই এলাকার সাংসদ ও মাননীয় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের নির্দেশনা ও পরিকল্পনায় উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে। উপজেলা পর্যায়ে এই প্রথম নওগাঁর তিনটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপন করা হলো। এটা সত্যই অনন্য উদ্যোগ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, সরকার প্রতিবছর উপজেলা পরিষদসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে স্বাস্থ্য খাতের জন্য বিশেষ বরাদ্দ দিয়ে থাকে। কিন্তু এসব টাকা প্রায় সময় স্বাস্থ্যখাতে ব্যবহার না ব্রিজ, কালভার্টসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে ব্যবহার করে হয়ে থাকে। বৈশিক করোনা সংকটের এই সময়ে মানুষের জীবন রক্ষার্থে সেই টাকা হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপন করা হলে সেটা দোষের কিছু নয়। বরং এটা একটি মহৎ উদ্যোগ। অনান্য জনপ্রতিনিধিদেরও প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে নিজ নিজ এলাকার হাসপাতালগুলোতে এ ধরণের অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনের জন্য আহ্বান জানাই। এতে অনেক মানুষের জীবন রক্ষা পাবে।

অক্সিজেন সংকটে পড়া রোগী ও জটিল করোনা রোগীদের সেবার জন্য নওগাঁর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালসহ জেলার বাকি সাতটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এখন পর্যন্ত কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ প্লান্ট স্থাপন হয়নি। ফলে অক্সিজেন সংকটে পড়া রোগীসহ জটিল করোনা রোগীদের রাজশাহী, বগুড়াসহ দেশের অন্যান্য হাসপাতালগুলোতে পাঠানো হয়।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকার বাইরে বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৩১০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই