তারিখ : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

প্রতিবন্ধী নারীর আকুতি কেউ শোনে না

তিন শিশুসন্তানের জননী এক প্রতিবন্ধী নারী রশিদার আকুতি কেউ শোনে না!
[ভালুকা ডট কম : ২৯ এপ্রিল]
নওগাঁর মান্দার এক প্রতিবন্ধী নারী রশিদা বেগমের আকুতি কারো কানে পৌছে না। শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় ৩৫ বছরের রশিদা বেগমকে প্রায় ১০ বছর আগে ছেড়ে চলে গেছেন স্বামী শহিদুল ইসলাম। বয়:সন্ধিক্ষণে ট্রাকচালক স্বামীর সঙ্গে বাবার বাড়িতেই সংসার পেতে ছিলেন রশিদা। তাদের সংসার জীবনে আকাশ, চাঁদ ও শাহিন নামে তিন ছেলে সন্তান জন্ম নেয়। ক্রমেই সংসারের ব্যয় বাড়তে থাকে।  স্বামী চলে যাবার পর তিন শিশুসন্তান নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন রশিদা। শুরু হয় বেঁচে থাকার সংগ্রাম। প্রতিবন্ধী এই নারী নওগাঁর মান্দা ও মহাদেবপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী পাঁঠাকাটা বাজারের বাসিন্দা।

রশিদা বেগমের বাবা ছলিম উদ্দিন ব্যাপারিও এ অঞ্চলের স্থায়ী বাসিন্দা নন। তিনি পেশায় ছিলেন ফেরিওয়ালা। জীবিকার তাগিদে একসময় পাঁঠাকাটা বাজারে এসে ভাড়াঘরে ব্যবসা শুরু করেন। পরবর্তীতে বাজারের ২৬৮ নম্বর দাগে ১০শতক সরকারি সম্পত্তি লীজ নেন তিনি। বাবার লীজকৃত সেই সম্পত্তিতে ছোট্ট একটি ঝুপড়ি ঘরে মা ও তিন সন্তান নিয়ে জীবনযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিবন্ধী রশিদা বেগম।

কিন্তু রশিদার বাবা ছলিম উদ্দিনের লীজকৃত ১০শতক জমির মধ্যে দখলে রয়েছে মাত্র ২শতকের মতো। অবশিষ্ট জমি শক্তি আর ক্ষমতাবলে দখল করে নিয়েছেন রশিদার প্রতিবেশি সফাপুর ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পাঁঠাকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারি আব্দুল মান্নান। বিএনপির এই নেতা প্রতিবন্ধীর সম্পত্তি দখল করে রাস্তার সামনে নির্মাণ করেছেন মার্কেট। টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে নিয়েছেন অবশিষ্ট জমিও।

ভুক্তভোগী রশিদা বেগম জানান, গত ১৪এপ্রিল বিএনপি নেতা আব্দুল মান্নান তার জমিতে টিনের বেড়া লাগানোর সময় দিলে তাকে পিটিয়ে আহত করা হয়। স্থানীয়দের সহায়তায় ভর্তি হন মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ১৭এপ্রিল হাসপাতাল থেকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। বাবার লীজকৃত জমি উদ্ধারে প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও ন্যায় বিচার থেকে বারবারই বঞ্চিত হচ্ছেন।

প্রতিবন্ধী এই নারী আফসোস করে বলেন, বিএনপিনেতা আব্দুল মান্নান পাঁঠাকাটা বাজারের ক্ষমতাধর ব্যক্তি। বাজারের লোকজন তাকে সমীহ করে চলেন। এজন্য তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও কোন সুফল পাচ্ছেন না। বিভিন্ন দপ্তর থেকে ঘটনাস্থল তদন্তে এলে তার ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পান না। সাক্ষী দিতেও ভয় পান। টাকা ও ক্ষমতার জোরে বারবারই তিনি পার পেয়ে যান।

অসহায় এই নারী বলেন, আমি শারীরিক প্রতিবন্ধী। কাজ করতে পারি না। নিজের কোন জমিজমা নেই। বাবার লীজকৃত ১০শতক সম্পত্তিই সম্বল। প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা ও পাঁঠাকাটা হাট ঝাঁড়ু দিয়ে যা পাই তা দিয়েই কোনো ভাবে চলে সংসার। বড় ছেলে আকাশ অভাবের তাড়নায় বাজারের একটি চায়ের দোকানে কাজ করে। মেজো ছেলে চাঁদ ৬ষ্ঠ শ্রেণি ও শাহিন ৪র্খ শ্রেণির শিক্ষার্থী। অবুঝ তিন শিশুসন্তান নিয়ে চরম দুর্বিসহ জীবন-যাপন করছেন এই নারী। বিএনপিনেতা মান্নানের রোষানল থেকে তিন শিশুসন্তান নিয়ে স্বাভাবিক ভাবে বাঁচতে সরকারসহ স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশের সহায়তা কামনা করেন প্রতিবন্ধী রশিদা বেগম।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বিএনপিনেতা আব্দুল মান্নান বলেন, বাজারের ২৬৮ নম্বর দাগে তিনিও ৯ শতক সরকারি সম্পত্তি লীজ নিয়েছেন। সেই জমিতেই মার্কেট নির্মাণ করেন। প্রতিবন্ধীর কোন সম্পত্তি দখল করেননি বলেও দাবি করেন তিনি।

মহাদেবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধী নারী রশিদা বেগম নওগাঁ জেলা প্রশাসক স্যারের নিকট একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন। সেই অভিযোগ তদন্তে ৩সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

নারী ও শিশু বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৩১৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই