তারিখ : ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

গৌরীপুরে অনলাইন ব্যবসায় সফল নারী উদ্যোক্তা সাথী

গৌরীপুরে অনলাইন ব্যবসায় সফল নারী উদ্যোক্তা সাথী
[ভালুকা ডট কম : ১৯ জুন]
অনলাইন ব্যবসা (ই-কমার্স) বিশ্বজুড়ে সমাদৃত হলেও আমাদের দেশে ব্যাপক হারে এর যাত্রা একেবারেই নতুন। গত বছর কোভিড-১৯ মোকাবেলায় মার্চ থেকে কঠোর লকডাউনে সারাদেশে যখন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়, তখন প্রয়োজনীয় পণ্য পেতে মানুষ অনলাইন মাধ্যমকে বেছে নেয়। আর দেশে তৈরি হয় ব্যবসার একটি নতুনক্ষেত্র।

ই-কমার্স বিজনেসে অনেক তরুণ উদ্যোক্তা দারুণ সাফল্য দেখিয়েছেন। বর্তমানে এসব সফলতার গল্প সামনে আসছে। ঘরে বসে মানুষের দৈনন্দিন প্রয়োজন মেটাতে ই-কমার্স বিজনেসের (অনলাইন) বিস্তার ঘটলেও এখন তা কেবল চাহিদায় সীমাবদ্ধ নেই। নতুন নতুন আইডিয়া ও উদ্ভাবনে তরুণ উদ্যোক্তারা রীতিমতো বিপ্লব ঘটিয়ে দিচ্ছেন। নিজের ব্যবসায় মানুষের আস্থা অর্জন করে তারা এখন আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হয়েছেন।   
তেমনি একজন নারী উদ্যোক্তা ময়মনসিংহের গৌরীপুরের তাছলিমা সাথী। সারাফ বুটিকস গড়ে তুলে মাত্র এক বছরে তিনি সফল উদ্যোক্তার খাতায় নাম লিখিয়েছেন। ২০২০ সালের ১৯জুন এ ব্যবসার যাত্রা শুরু করেন তিনি। এই একবছরে নানা প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে সারাফ বুটিকস মানুষের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।  

তবে শুরুর পথটা মোটেও মসৃণ ছিলো না তাঁর। সকল বন্ধুরতা কাটিয়ে মেধা, মনন, পরিচিতি আর পরিশ্রমকে কাজে লাগিয়ে প্রথম তিন মাসের মাথায় এক লাখ টাকার একটি অর্ডার পান। এরপর পিছনে ফিরতে হয়নি তাকে। ইতোমধ্যেই দেশের নারী উদ্যোক্তাদের বড় ই-কমার্স ফ্ল্যাট ফরম তৈরী করে লাখপতির তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। হয়েছেন একজন সফল নারী উদ্যোক্তা। এই সাফল্যের পিছনে রয়েছে তার স্বামী একেএম সাজ্জাদ বিপুল ও তার পরিবারের পূর্ণ সহযোগিতা। অত্যাধুনিক ও নতুন ডিজাইনের পোশাক দিয়ে সাজিয়েছেন গৌরীপুর পৌরসভার শান্তিবাগের নিজ বাসা।তাঁর বেশির ভাগ গ্রাহক চাকরিজীবী, গৃহবধূ আর স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী। তিনি ই-কমার্সের মাধ্যমে গৌরীপুর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে গ্রাহকদের মাঝে সঠিক সময়ে পৌঁছে দিচ্ছেন শিশু ও নারীদের হরেকরকম পোষাক ও বিছানার চাদর।

সফল এ নারী উদ্যোক্তা তাছলিমা সাথীর জন্ম ময়মনসিংহের সদরের রাঘবপুর এলাকায়। লেতুমন্ডল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, মুমিনুন্নিসা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক এবং ত্রিশাল কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি এক কন্যা সন্তানের জননী। নারী উদ্যোক্তা তাছলিমা সাথী বলেন, এই ব্যবসার শুরুর দিকে এতোটা পরিচিতি ছিলো না। আমি সবসময় লাভের চেয়ে পণ্যের গুণগতমানের দিকটা বেশি গুরুত্ব দেই। কোয়ালিটি নিশ্চিত করায় এই ফ্ল্যাটফর্মে একটি অবস্থান তৈরী হয়েছে এখন। ব্যবসাটিকে বড় পরিসরে নিয়ে যেতে পরিবারসহ সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। ইতোপূর্বে তাদের অবদান কৃতজ্ঞতার সাথে স্বরণ করেন সাথী।

গৌরীপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুলতানা বেগম আকন্দ বলেন- করোনায় অনলাইন ব্যবসায় অনেক তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী উদ্যোক্তা সফলভাবে এখন অনলাইনে ব্যবসা করছেন, এতে তাদের পরিবারের পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতেও অবদান রাখছে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

নারী ও শিশু বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৩২৬ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই