তারিখ : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

শ্রীপুরে ব্রীজ নির্মাণে ধীরগতি, ভোগান্তিতে মানুষ

শ্রীপুরে ব্রীজ নির্মাণে ধীরগতি, ভোগান্তিতে লাখো মানুষ
[ভালুকা ডট কম : ২৫ এপ্রিল]
গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী বাজারের নলজোরা খালের উপর  কেন্দুয়া ব্রীজের নির্মাণ কাজ চলছে ধীর গতিতে। পুরনো ব্রীজ ভেঙ্গে শুরু হয়েছে নতুন ব্রীজ নির্মাণ। পাশের বাইপাস না থাকায়  যানবাহন চলতে পারেনা। পায়ে হেঁটে চলাই এখন কষ্ট সাধ্য। নড়বরে ভাবে তৈরী করা হয়েছে কাঠের সেতু। নির্মাণাধীন ব্রীজের পাশে বাইপাস না থাকয় ভোগান্তিতে পরেছে লাখো মানুষ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জেলার নদীবন্দর ক্ষ্যাত বরমী বাজারের প্রধান সংযোগ সড়কে নলজোর খালের উপর কেন্দুয়া ব্রীজের অবস্থান। এ ব্রীজ দিয়ে প্রতিদিন শতশত ট্রাক,পিকআপ,অটোরিক্সা,সিএনজিসহ পন্য ও যাত্রী বাহী যানবাহন চলাচল করে। বরমী বাজার খেয়া ঘাটদিয়ে পার্শবর্তী ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও,পাগলা থানা এবং কাপাসিয়া উপজেলার উত্তর অংশের লাখো মানুষ যাতায়াত করেন। এছাড়া  উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ সাপ্তাহিক হাট বুধবারে বাজার করা ছাড়াও প্রতিনিয়ত ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে বরমী বাজারে আসা যাওয়া করে। ইদুল ফিতরকে সামনে রেখে চলাচল বেড়ে গেছে বহুগুন। আসন্ন ঈদে ঘড়মুখো মানুষ পড়বে চরম বিরম্বনায়।

বহু বছড়ের পুরনো জড়াজীর্ণ কেন্দুয়া ব্রীজটির নির্মাণ কাজ শুরু হলে এলাকা বাসীর মধ্যে স্বস্তিদেখা যায়। এখন কাজের ধীর গতি আর যথাযথ বাইপাস না থাকায় জন অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনগনের ভোগান্তি দেখে ইউনিয়ন পরিষদেও উদ্দোগে শীতলক্ষার পার কেটে একটি বাইপাস নির্মাণ করা হয়েছে। যা দিয়ে সাধারণ মানুষ পায়ে হেঁটে চলাচল করলেও যান বাহন চলার কোন উপায় নেই। ভুল করে কেউ যানবাহন নিয়ে এ পথে চলে এলে তাকে ১০কি.মি পথ গুড়ে বাজারে প্রবেশ করতে হয়।

বরমী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান  মো. তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ব্রীজ নির্মাণের জন্য সাময়িক ভোগান্তিতে পরে সাধারণ জনগন। মানুষে কথা চিন্তা করে পরিষদের অর্থায়নে নদীর পার কেটে একটি বাইপাস সড়ক করে দেয়া হয়েছে। নদীন পানি বাড়তে শুরু করেছে। বর্ষায় সড়কটি তলিয়ে গেলে জনভোগান্তি আরো বাড়বে।

ঠিকাধারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স মোশফিকুর রহমান কাঞ্চন এন্টার প্রাইজের সত্বাধিকারী মোশফিকুর রহমান কাঞ্চন বলেন, বাইপাস সড়কের বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবনা। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী ভাল বলতে পারবেন।

উপজেলা প্রকৌশলী এ.জেড.এম রকিবুল আহসান জানান, ২৭অক্টোবর’২১ তারিখে কার্যাদেশ পেয়ে ব্রীজের কাজ শুরু করেন মেসার্স মোশফিকুর রহমান কাঞ্চন এন্টার প্রাইজ। ২৭মিটার দীর্ঘ ব্রীজের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে  ২ কোটি ৩৬লাখ টাকা। আগামী ডিসেম্বর মাসে নির্মাণ কাজ শেষ হবে। ব্রীজের পাশে বাইপাস নির্মাণের মতো জায়গা না থাকায় সিডিউলে বাঁশের  সাঁকো  ধরা হয়েছে। রাস্তায় বিদ্যুতের খুঁটি আর জায়গার সমস্যা থাকার কারণে কাজ কিছু বিলম্বিত হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে তিনি আশাবাদী।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫২২২ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই