তারিখ : ৩০ নভেম্বর ২০২২, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মাদ্রাসা মহা-পরচালক বরাবর স্মারকলিপি

মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহা-পরচালক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান
[ভালুকা ডট কম : ২৩ আগস্ট]
ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের নিভিয়াঘাটা ফাযিল মাদ্রাসায় অধ্যক্ষ পদে ব্যাপক অনিয়ম, দূর্নীতি ও মোটা অংকের উৎকোচ বিনিময় করে মাওলানা মো. আজিজুল ইসলামকে গভনিং বডির নিয়োগ দান করায় সুনিদিষ্ট ৭টি অভিযোগ সহ মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহা পরিচালক বরাবর একটি অভিযোগ/স্মারকলিপি এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগের কপি সংশ্লিষ্ট ৮ জায়গায় প্রেরণ করা হয়েছে। প্রাপ্ত অভিযোগ থেকে জানাগেছে, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিজির প্রতিনিধি হিসাবে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দায়িত্ব প্রদান করা হয় এবং সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসায় নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহনের নিদের্শনা থাকলেও ডিজির নিদের্শনা না মেনে ইউএনও’র কার্যালয়ে গত ৩১ জুলাই এক তরফা কথিত নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন করে। ২৮ জুলাই নিয়োগ পরীক্ষা হবার চিঠি দেওয়া হলেও ইউএনও তা হঠাৎ করে স্থগিত ঘোষনা করে পুনরায় ৩১ জুলাই পরীক্ষা গ্রহন করেন। অধ্যক্ষ পদে ৯জন আবেদনকারীর মাঝে পরীক্ষায় উপস্থিত হয়ে অনিয়মের অভিযোগ এনে তাৎক্ষনিক ৫জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা বর্জন করে চলে যায়। পরে নিয়োগ প্রাপ্ত আজিজুল ইসলাম সহ ৩জন প্রক্সি পরীক্ষার্থী হিসাবে অংশ গ্রহন করে। ইতিপূর্বে অত্র মাদ্রাসায় কর্মরত ২৭জন শিক্ষক/কর্মচারী নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহনের পূর্বেই মাদ্রাসার গভনিং বডির সভাপতি সৈয়দ রুকুনুজ্জামানের নিকট মাওলানা ইসলামকে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দান না করার জন্য লিখিত আবেদন জানালেও মাদ্রাসার গভনিং বডির সভাপতি তা আমলে নেই নাই। অধ্যক্ষ পদে আবেদন করার যোগ্যতা নেই এধরনের তিনটি আবেদন পত্র সংগ্রহ করে এই নিয়োগের বৈধতা দেওয়ার চেষ্ঠা করা হচ্ছে। বর্তমান মাদ্রাসার গভনিং বডির সভাপতি সৈয়দ রুকুনুজ্জামান ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুর রহিম সদ্য নিয়োগের জন্য সুপারিশ প্রাপ্ত মাওলানা আজিজুল ইসলামের নিকট থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য ৩০ লাখ টাকা নিয়োগ বাণিজ্য করেছে বলে এলাকার সবার মুখে মুখে বিষয়টি আলোচনা হচ্ছে। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন নান্দাইল উপজেলা শাখার দপ্তর সম্পাদক মো. মাহাবুব আলম খান সুনিদিষ্ট ৭টি অভিযোগের প্রেক্ষিতে অবৈধভাবে নিয়োগ প্রাপ্ত মাওলানা আজিজুল ইসলামের এমপিও তালিকাভূক্ত না করে সম্পূর্ন নিয়োগ প্রক্রিয়াটির উপর সরজমিনে তদন্ত পূর্বক নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল করে পুনরায় যথাযথ আইন বিধি প্রতিপালন করে একজন ভাল মানের অধ্যক্ষ নিয়োগ দানের জোরদাবী জানিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুর রহিমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গভনিং বডির সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ার আমার সুযোগ নেই। নিয়োগ প্রক্রিয়ায় খরচপাতি হয়ে থাকে যা আপনারার জানা। তবে ৩০ লাখ টাকা গ্রহনের কথা তিনি অস্বীকার করেন।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

শিক্ষাঙ্গন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৫৩৫ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই