তারিখ : ২৬ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকার বন ভূমিতে অর্ধশত পাঁকা বাড়ী নির্মান অব্যাহত

ভালুকার বন ভূমিতে অর্ধশত পাঁকা বাড়ী নির্মান অব্যাহত
[ভালুকা ডট কম : ১৮ ফেব্রুয়ারী]
ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ও মেহেরা বাড়ী মৌজায় বনের গেজেট ভূক্ত ভূমিতে অবাদে পাঁকা বাড়ি নির্মান কাজ অব্যাহত রয়েছে। অবৈধ দখলদাররা গেজেট ভূক্ত বন ভূমিতে পাকা বাড়ী নির্মান করে যাচ্ছে।

আজ ঐ এলাকা পরিদর্শন কালে বাড়ী নির্মান কারীরা জানান, স্থানীয় বন বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের চাহিদানুযায়ী টাকা পয়সা দিয়ে এসব বাড়ী নির্মান করা হচ্ছে। পরিদর্শন কালে দেখা যায় হবিরবাড়ী মৌজার ১৮৫ নং দাগে ঐ গ্রামের আজিজুল ইসলাম, জসিম উদ্দিন, খোকা মিয়া ও ডাঃ আইনুল হক। মেহেরা বাড়ী মৌজার ৭৪ নং দাগে ওয়াহাব মুন্সি। ১৬০ নং দাগে সুজন মিয়া, হাজী মানিক মিয়া, ভালুকা ইউপি চেয়ারম্যান শিহাব আমীন খান, শামীম মিয়া, কিবরিয়া, আলিম ও মিলন মিয়াসহ প্রায় অর্ধশত ব্যক্তি বন বিভাগের গেজেট ভূক্ত দাগের এসব জমি অবৈধ ভাবে দখল করে পাঁকা বাড়ী ও পাঁকা স্থাপনা নির্মান করে যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে ভালুকার বন বিভাগের রেঞ্জার মোজাম্মেল হোসেন কে এসব বাড়ী নির্মানের কথা জিজ্ঞাস করা হলে তিনি এব্যাপরে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নিবেন বলে জানিয়েছেন। তবে পরিদর্শন কালে এসব বাড়ীর নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন অবৈধ দখলদাররা। নির্মান কারীদের দাবী তারা স্থানীয় বন বিভাগের চাহিদানুযায়ী টাকা দিয়েছেন। এসব অভিযোগ মোবাইলে ধারন করা হয়েছে। তবে ভালুকার রেঞ্জার বাড়ী নির্মান কারীদের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, অবৈধ দখলদাররা যদি কাওকে টাকা দিয়ে থাকেন এতে কোন লাভ হবেনা। তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রকাশ: ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী মৌজার যে এলাকাতে সংরক্ষিত বনাঞ্চল ছিল সেই বনাঞ্চলে গড়ে উঠেছে শিল্প শহর। বিশেষ করে হবিরবাড়ী মৌজার ৯, ১৯, ১৮৫, ১৫৪, ১১০, ৮৭ নং দাগসহ বিভিন্ন দাগের গেজেট ভূক্ত বন ভূমিতে অবৈধ দখলদাররা নির্মান করেছেন বিভিন্ন ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠান। এতে লাভবান হচ্ছে বন বিভাগের কতিপয় দূর্নীতি বাজ কর্মকর্তা ও কর্মচারী। সরকার হারাচ্ছে কোটি টাকার রাজস্ব।

স্থানীয় বন বিভাগের রহস্য জনক ভূমিকা দেখে মনে হয় সাবেক প্রধান বন সংরক্ষক দূর্নীতির দায়ে সাজা প্রাপ্ত বনের রাজা খ্যাত বন খেকো ওসমান গনির উত্তর সুরীরা ভালুকার বনাঞ্চলে পর্যায় ক্রমে দায়িত্ব পালন করছেন। এব্যাপারে বন বিভাগের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার মাধ্যমে সরজমিনে ত্রুটি মুক্ত তদন্ত করা হলে এই খবরের সত্যতা প্রমানিত হবে বলে পরিবেশ বাদীরা মনে করেন।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৬০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই