তারিখ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

কালিয়াকৈরে কারখানার বায়ু দুষণে এলাকাবাসি অতিষ্ঠ

কালিয়াকৈরে কারখানার বায়ু দুষণে এলাকাবাসি অতিষ্ঠ
[ভালুকা ডট কম : ০১ জুলাই]
গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার আন্দারমানিক এলাকায় একটি কারখানা থেকে নির্গত বায়ু দূষণের কারণে এলাকাবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। ওই এলাকায় অবস্থিত এমএসএ টেক্সটাইলস্ ও এমএসএ স্পিনিং লিমিটেড কারখানার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার দুপুরে কারখানা পরিদর্শন করে দূষণ বন্ধ করতে সাত দিনের সময় দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তার।

এলাকাবাসী জানান, উপজেলার আন্দারমানিক এলাকায় একই মালিকানাধীন এমএসএ টেক্সটাইলস্ ও এমএসএ স্পিনিং লিমিটেড কারখানা রয়েছে। ওই কারখানা ডাস্ট কালেক্টর এগজস্ট পাইপ লাইনটি স্থাপন করা হয়েছে বসত বাড়ির পাশে। যার ফলে ওই ডাস্ট কালেক্টর এগজস্ট পাইপ  দিয়ে নির্গত সব ডাস্ট ছড়িয়ে পড়ছে বসত বাড়িতে। এতে ভোগান্তিতে রয়েছে শতশত সাধারণ মানুষ। এসব ডাস্টের কারণে নাক ও মুখে মাকস অথবা কাপড় বেঁধে চলতে হচ্ছে এলাকাবাসীকে। এছাড়া রান্না করা খাবারেও ছড়িয়ে পড়ছে এসব ডাস্ট। বাসিন্দারা জানান, কারখানার কর্মকর্তারা দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় কিছু জমি ক্রয় করতে চাইছে। কিন্তু তারা বিক্রি করতে আগ্রহী না হওয়ায় এলাকাবাসীকে ডাস্টা ও বিকট শব্দের জেনারেটর বসিয়ে উত্যক্ত করা হচ্ছে। যাতে তারা কমমূল্যে জমি বিক্রি করে দিতে বাধ্য হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের সফিপুর বাজার থেকে দক্ষিণ দিকে আন্দারমানিক এলাকায় এমএসএ টেক্সটাইলস্ ও এমএসএ স্পিনিং লিমিটেড কারখানার অবস্থান। কারখানার দক্ষিণ পাশে কয়েকটি বসত বাড়ির পাশে নিচু করে স্থাপন করা হয়েছে ওই কারখানার ডাস্ট কালেক্টর এগজস্ট পাইপ লাইন। ওই পাইপ দিয়ে নির্গত হচ্ছে তুলার মতো ডাস্ট। যা ছড়িয়ে পড়ছে আশপাশের এলাকায়। এছাড়া ওইসব ডাস্ট ঘরের ভেতর ঢুকে পড়ছে। এতে বায়ু ও পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। এলাকাবাসীকে ভোগান্তির মধ্যে থেকে জীবন যাপন করতে হচ্ছে। রশিদ মিয়া নামে এক বাসিন্দা জানান, কারখানার ডাস্টের কারণে ঘরে বসে খাবার খাওয়া যাচ্ছে না। জামা কাপড়সহ ঘর বাড়ি নোংড়া হচ্ছে। দিনের বেলায় নাক-মুখে কাপড় ও মাকস লাগিয়ে চলতে হয়। গত ১৫-১৬ দিন ধরে কারখানার ডাস্ট কালেক্টর এগজস্ট পাইপ লাইন থেকে এমন ডাস্ট বের হচ্ছে।

কারখানার সিনিয়র অফিসার (এডমিন) আরজু মিয়া  নির্যাতন করে জমি ক্রয়ের বিষয়ে অস্বীকার করে বলেন, এলাকাবাসীর সমস্যা হলে কারখানার ডাস্ট কালেক্টর এগজস্ট পাইপ লাইনটি সরিয়ে অন্য স্থানে স্থাপন করা হবে।

এব্যাপারে গাজীপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ও রিসার্চ অফিসার মো. আশরাফ উদ্দিন জানান, কারখানাটিতে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র আছে। তবে তারা পরিবেশ অধিদপ্তরের শর্ত ভঙ্গ করে পরিবেশ দূষণ করে আসছে। তাই কারখানার কতৃপক্ষকে সর্তক করা হয়েছে আগামী ৭ দিনের মধ্যে কারখানার ডাস্ট কালেক্টর এগজস্ট পাইপ লাইনটি সরিয়ে নেয়ার জন্য। তা না হলে কারখানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

পরিবেশ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই