তারিখ : ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মনপুরায় একাধিক ভাঙ্গা ব্রীজে মৃত্যুঝূঁকি নিয়ে চলাচল

মনপুরায় একাধিক ভাঙ্গা ব্রীজে মৃত্যুঝূঁকি নিয়ে চলাচল
[ভালুকা ডট কম : ২৭ অক্টোবর]
ভোলার মনপুরায় একাধিক ভাঙ্গা ব্রীজে মৃত্যুঝূঁকি নিয়ে চলাচল করছে জনসাধারন। কোথাও ব্রীজের রেলিং ভাঙ্গা। কোথাও ভেঙ্গে গেছে ব্রীজের মূল পাটাতন। কোথাও বা ভাঙ্গা ব্রীজের নিচ থেকে মাটি ৩/৪ ফুট সরে গিয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। এতে প্রতিনিয়ত দূর্ভোগের স্বীকার হচ্ছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

কোন ব্রীজ নির্মানের বহু বছর হয়ে গেলেও নেই কোন সংস্কার। কোথাও নির্মানের ২/৩ বছরের মাথায় ভেঙ্গে গেছে এসব ব্রীজ। একটি ব্রীজ সংস্কারের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সংস্কার না হওয়ায় এসব ব্রীজ ভেঙ্গে যেন মরণ ফাঁদে পরিনত হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার হাজীর হাট হাট ইউনিয়নের চরফৈজুদ্দিন গ্রামের সাথে উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের আনন্দবাজার সংযোগ সড়কে নির্মিত সবচেয়ে বড় ব্রীজটি ২০১৪ সালে উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনের ১ বছরের মাথায় ব্রীজটিতে ফাটল দেখা দেয়। প্যালাসাইডিং ভেঙ্গে ব্রীজের মূল পাটাতনেও দেখা দেয় বড় আকারের ভাঙ্গন। ব্রীজটিতে ঝূঁকি নিয়ে পারাপার করছে মানুষ ও যানবাহন।

এছাড়াও উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের আনন্দবাজার ও ভোকেশনাল স্কুল সংযোগ সড়কে ব্রীজটি নির্মান করা হয় ২০০৩ সালে। সেই থেকে ব্রীজটি রয়েছে অযত্ন অবহেলোয়। ব্রীজটির মূল পাটাতন ভেঙ্গে মরণ ফাঁদে পরিনত হয়েছে। ভেঙ্গে পড়েছে সম্পূর্ণ রেলিং। মাটির রাস্তার সংস্কার না হওয়ায় ৩/৪ ফুট নিচে মাটি নেমে গিয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে ব্রীজটি। যে কোন মুহুর্তে পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে ১ নং মনপুরা ইউনিয়নের আন্দিরপাড় কুলাগাজীর তালুক সংযোগ সড়কে অবস্থিত ব্রীজটিরও বেহাল দশা। নির্মানের কয়েক বছরের মাথায় ব্রীজটির মূল পাটাতন ফুটো হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ব্রীজটিতে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে মানুষ।

এছাড়াও সীতাকুন্ড সংযোগ সড়কের ব্রীজটিরও একই চিত্র। যে কোন মুহুর্তে পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা করছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা। তাই দ্রুত ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজগুলো সংস্কার ও পুনঃনির্মান করার দাবী জানান এলাকাবাসী।

এব্যাপারে উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ও উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ জাকির হোসন মিয়া জানান, ঝুকিপূর্ণ ব্রীজগুলো সংস্কারের ব্যাপারে আমরা প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি। ব্রীজগুলো পুনঃনির্মান ও মেরামতের জন্য বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। শিঘ্রই কাজ শুরু হবে।

এব্যাপারে উপজেলা এলজিইডি’র প্রকৌশলী মোঃ অহিদুজ্জামান জানান, আমরা মোট ৪ টি ক্ষতিগ্রস্থ ব্রীজের ব্যাপারে প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি। তন্মধ্যে উপজেলার হাজীর হাট ইউনিয়নের চরফৈজুদ্দিন সংযোগ সড়ক থেকে দক্ষিন সাকুচিয় ইউনিয়নের দখিনা হাওয়া সী-বীচ পর্যন্ত দুইটি জরাজীর্ন ব্রীজ সম্পূর্ন ভেঙ্গে নতুন করে নির্মান ও একটি ব্রীজ সংস্কারের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। খুব শিগ্রই ব্রীজ ৩ টির কাজ শুরু হবে। এছাড়াও আন্দিরপাড় কুলাগাজীর তালুক সংযোগ সড়কে অবস্থিত ব্রীজটি সংস্কারের প্রস্তাবনা পাশের অপেক্ষায় রয়েছে।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৩২৬ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই