তারিখ : ৩০ মে ২০২৩, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

তজুমদ্দিনে পাল্টাপাল্টি হামলায় নারীসহ আহত-২৮

তজুমদ্দিনে জমির বিরোধে পাল্টাপাল্টি হামলার অভিযোগ নারীসহ আহত-২৮
[ভালুকা ডট কম : ২৭ এপ্রিল]
ভোলার তজুমদ্দিনে জমিজমার বিরোধে পাল্টাপাল্টি হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় উভয় পক্ষের অন্তত ২৮ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে উভয় গ্রুপের ১৫ জনকে তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কেয়ামূল্যাহ গ্রামের দর্জি বাড়ির মোস্তাফিজ দর্জি একই বাড়ির জাকির হোসেনের চলাচলের রাস্তা বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয়। অনেক দেনদরবার করেও যখন মোস্তাফিজ জাকিরের চলাচলের রাস্তা খুলে দেয়নি তখন জাকির মোস্তাফিজের টয়লেটে যাওয়ার রাস্তা বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয়। এঘটনায় উভয় পক্ষ চাঁদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ করেন।

বুধবার (২৬ এপ্রিল) বিকালে ঘটনাটি মিমাংসা করতে চেয়ারম্যানের আসার অপেক্ষা করছেন গ্রাম্য শালিশসহ উভয় পক্ষ। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান না আসতেই শালিশ হিসেবে আসা সাবেক মেম্বার হেলাল দর্জি প্রতিপক্ষ জাকিরের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পরেন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি থেকে হামলা পাল্টা হামলা শুরু হয়।  হামলার ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ২৮ জন আহত হয়।

আহতরা হলেন, জাকির হোসেন, খোরশেদ আলম, সেলিম, সুফুরা বেগম, সুলতান আহাম্মদ, কমলা, আনোয়ার, আঃ রব, আব্দুর রহীম, কাঞ্চন, হেলাল দর্জি, কামলা দর্জি, সুমন দর্জি, নাজিম দর্জি, শরীফ, মোস্তাফিজসহ উভয় গ্রুপের অন্তত ২৮ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে উভয় পক্ষের ১৫জনকে তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আহত জাকির হোসেন বলেন, বিচারের জন্য চেয়ারম্যান আসতে দেরী দেখে আমি তাকে ফোন করি তিনি আসতেছি বলায় আমি দরজায় আসলে মেঘনার জলদস্যু হেলাল দর্জি, সুমন দর্জি, কামাল দর্জি ও মোস্তাফিজসহ ১০/১৫ জনের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় আমাদের তিন নারীসহ ১৩জন আহত হই। একই অভিযোগ করেন মোস্তাফিজ গ্রুপের সুমন দর্জি। তাদের ১৫ জন আহত হয়েছে বলে জানান।

চাঁদপুর ইউপির চেয়ারম্যান শহিদুল্যাহ কিরন বলেন, দর্জি বাড়িতে তাদের জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলছিলো। বিষয়টি মিমাংসার জন্য ২৬ এপ্রিল বিকালে ধার্য তারিখ ছিলো। আমি আসতে একটু দেরী হওয়ায় দুইপক্ষই মারামারিতে জড়িয়ে পড়েন। তবে হেলাল দর্জিকে আমি শালিশ হিসেবে থাকার জন্য বলছি খোঁজ খবর নিয়ে দেখবো শালিশ হিসেবে উপস্থিত হয়ে কেন মারামারিতে জড়িয়ে গেলে হেলাল দর্জি।

তজুমদ্দিন থানার অফিসার ইনচার্জ মাকসুদুর রহমান মুরাদ বলেন, মারামারির ঘটনা শুনে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে ফোর্স পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় কোন পক্ষই লিখিত অভিযোগ দেয়নি, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অপরাধ জগত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৮১৪৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই